প্যারেন্টিং স্টাইল ও সন্তানের ভবিষ্যৎ

Share

‘অমুকের ছেলে পরীক্ষায় ফার্স্ট হতে পারলে তুমি কেন পারবে না?’- আমাদের দেশে এইরকম কথা শুনেনি এইরকম ছেলেমেয়ে পাওয়া ভার। অনেক ছেলেমেয়ে ছোটবেলা থেকেই এই কারণে হীনমন্যতায় ভোগে। বাবা মা আমাদের সবচেয়ে বড় শুভাকাঙ্ক্ষী- এই বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু সন্তানের ভালো হবে চিন্তা করে বাবা মায়েরা যা কিছু করেন তার সবই কি ঠিক?

শুধু খাদ্য, পোশাক, ভালো স্কুলে ভর্তি করানো ইত্যাদি মৌলিক চাহিদা পূরণ করা পর্যন্তই অভিভাবকের দায়িত্ব সীমাবদ্ধ না।সন্তানের মনস্তত্ব সঠিকভাবে বুঝা ও তার মানসিক বিকাশের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করাও অভিভাবকের গুরুদায়িত্ব। এই প্যারেন্টিং স্টাইলের উপর সন্তানের ভবিষ্যৎ আচরণ অনেকখানি নির্ভর করে।

যেসব পিতামাতা তাদের সন্তানদের যথেষ্ঠ সময় দেন না তাদের সন্তানদের আচরণে পরবর্তীতে aggressiveness আর insecurity লক্ষণীয়। আবার সন্তানের প্রতি অতিরিক্ত সংবেদনশীল (over protective) বাবা মায়েদের কারণে সন্তানরা অতিরিক্ত নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। অনেক পিতামাতাই সন্তানের ন্যায় অন্যায় সকল আবদার পূরণ করে থাকেন। সন্তানের আবদার পূরণ করাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু অনেক সময়ই দেখা যায় সন্তান আরেকজনের খেলনা তার অনুমতি ছাড়াই ব্যবহারের অন্যায় জেদ করে থাকে। আর পিতামাতা তাদের এই আবদার রক্ষাও করে থাকেন। এতে করে শিশুরা অন্যের খেলনা কেড়ে নিতে শিখে। পরবর্তীতে তারা আক্রমণাত্নক, অন্যের ইচ্ছা বা আবেগের প্রতি অসহিষ্ঞু এবং অবাধ্য হয়ে উঠে।

সমাজ মনোবিজ্ঞানীরা শিশুর সামাজিকীকরণে প্যারেন্টিং স্টাইলের প্রভাব নিয়ে প্রচুর গবেষণা করেছেন। মনোবিজ্ঞানীরা মূলত তিন ধরণের প্যারেন্টিং স্টাইল চিহ্নিত করেছেন।

১. Authoritarian

২. Permissive

৩. Authoritative

Authoritarian প্যারেন্টিং এ পিতামাতার প্রতি চরম আনুগত্য প্রদর্শন করা হয়। শিশুদের মতামত বা ইচ্ছাকে কম মূল্যায়ন করা হয়। শিশুর আচরণ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য শাস্তির প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হয়। এতে করে পিতামাতা ও শিশুদের সম্পর্ক আন্তরিক ও বন্ধুত্বপূর্ণ হওয়ার বদলে শিশুর মধ্যে ভীতি ও আনুগত্যের সৃষ্টি করে। Authoritarian প্যারেন্টিং শিশুর আত্নবিশ্বাস গঠনে বিরূপ ভূমিকা পালন করে। পরবর্তী জীবনে ব্যক্তির আচরণে রাগ, বিতৃষ্ঞা, ক্ষোভ, ডিপ্রেশন দেখা দিতে পারে।

Permissive পিতামাতা শিশুর উপর অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করেন না বরং শিশুদের নিজেদের অভিব্যক্তি প্রকাশের সুযোগ সৃষ্টি করেন। শিশুদের শাস্তির ভয় দেখিয়ে নিয়ম শৃঙ্খলা বা আদব কায়দা শেখানোর পরিবর্তে এর পেছনের যৌক্তিক কারণগুলো বুঝিয়ে নিয়ম কানুন মেনে চলতে উৎসাহিত করেন। যেমন, কোন শিশু জোর করে অন্যের খেলনা নেওয়ার আবদার করলে পিতামাতা যদি ছোট বয়সেই তাদের বুঝিয়ে বলেন যে অন্যের জিনিস তার অনুমতি ব্যতীত ব্যবহার করা উচিত না- তাহলে তারা তাদের আচরণে পরিবর্তন আনতে সক্ষম হবে। পরবর্তীতে তারা অন্যের ইচ্ছা অনিচ্ছার প্রতিও শ্রদ্ধাশীল হবে।

মনোবিজ্ঞানীরা authoritative প্যারেন্টিং স্টাইলকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। Authoritative পিতামাতা যেমন শিশুর নিজস্ব ব্যক্তিত্বকে গুরুত্ব দেন তেমনিভাবে তারা সামাজিক মূল্যবোধ শিখানোর প্রতিও যত্নশীল। Authoritative প্যারেন্টিং এ ব্যক্তির সিদ্ধান্ত গ্রহণের স্বাধীনতা, মতামত, ব্যক্তিত্বকে গুরুত্ব সহকারে মূল্যায়ন করা হয়। শিশুদের আত্মবিশ্বাস গড়ে তোলা, সামাজিকীকরণ, সফল ব্যক্তিত্ব গঠনে authoritative প্যারেন্টিং সবচেয়ে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।গবেষণায় দেখা গেছে, authoritative প্যারেন্টিং এ বেড়ে উঠা শিশুর পরবর্তী জীবনে ডিপ্রেশন বা অপরাধ প্রবণতার হার অনেক কম।

প্রতিটি শিশু প্রাথমিক গুরুত্বপূ্র্ণ আচরণ পরিবার তথা পিতামাতা থেকেই  শিখে। তাই একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ প্রজন্ম গড়ে তোলার জন্য সঠিক প্যারেন্টিং এর প্রতি পিতামাতার যত্নবান হওয়া উচিত।  -সামিরা মাহজাবিন

ফ্রাস্ট্রেশনের এপিঠ ওপিঠ

Share

“খুব ফ্রাস্ট্রেশনে আছি” আমাদের প্রতিদিনের জীবনে একটি সাধারণ বিষয় হয়ে উঠেছে এই কথাটি। সাধারণত আমরা কখন ফ্রাস্ট্রেশনে থাকি? কেনোই বা ফ্রাস্ট্রেশন ঘিরে ধরে আমাদের? এই নিয়েই আজকের লেখা।

ফ্রাস্ট্রেশন কখন হয়?

সাধারণত আমরা যখন আমাদের কোনো একটি লক্ষ্যে পৌঁছাতে ব্যর্থ হই কিংবা কোনো একটি কাজ করার সময় বাধার মুখে পড়ি তখন আমরা ফ্রাস্টেশনের সম্মুখীন হই। প্রতিদিনের ঘটনাবহুল জীবনে বিভিন্ন বিষয়ের কারণেই আমরা ফ্রাস্টেশন অনুভব করতে পারি। দীর্ঘ জ্যাম, টিকেট কাউন্টারের লম্বা লাইন, বিকট শব্দে বাজতে থাকা লাউডস্পীকারের ফলে পড়াশোনায় মনোযোগ বসাতে না পারা ইত্যাদি ঘটনার কারণে আমরা প্রায় সময়ই ফ্রাস্ট্রেশন অনুভব করছি। ফ্রাস্ট্রেশনের সাথে প্রাথমিক ভাবে আমরা বিরক্তি এবং রাগ অনুভব করে থাকি। তবে সব ধরণের ফ্রাস্ট্রেশনই যে রাগের সৃষ্টি করবে তা নয়। অনেক ক্ষেত্রে আমরা ফ্রাস্ট্রেশনকে একধরণের সিগন্যাল হিসেবে নিতে পারি যা কিনা আমাদের লক্ষ্যের দিকে আমাদের এগিয়ে যাওয়ার পন্থাকে প্রভাবিত করে। অর্থাৎ কোনো এক উপায়ে কাজ সম্পন্ন না হলে অন্য কোনো উপায়ের আশ্রয় নেয়া। এতে ব্যক্তি তার সৃজনশীলতার চর্চা করতে পারে। ফ্রাস্ট্রেশন স্বয়ংক্রিয় ভাবেই আমাদের জীবনে আসবে এবং প্রভাব বিস্তার করবে। যেহেতু আমরা অর্জন এবং সাফল্যের দিকে নিজেদের জীবনকে পরিচালিত করছি সেহেতু প্রতিটি পদক্ষেপে বাধার সম্মুখীন হওয়া এবং তা থেকে ফ্রাস্ট্রেশনের সৃষ্টি হওয়াটা স্বাভাবিক।

ফ্রাস্ট্রশন কেনো হয়?

আমরা আগেই জেনেছি যে, সাধারণত মানুষ যখন কাজেকর্মে বাধা পায় কিংবা কোনো একটি লক্ষ্য অর্জনে বাধার সম্মুখীণ হয় তখন সে ফ্রাস্ট্রেশন অনুভব করে থাকে। সাইকোলজিস্টরা ফ্রাস্ট্রেশন কেনো হয় এর উত্তর খুঁজতে গিয়ে অভ্যন্তরীন এবং বহিরাগত দুই ধরণের কারণ চিহ্নিত করেছেন। ফ্রাস্ট্রেশনের কারণ হিসেবে কোনো একটি কাজ সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় আত্মবিশ্বাসের অভাব কে অভ্যন্তরীন কারণ এবং কোনো একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যের সামাজিক অবস্থা কিংবা উক্ত লক্ষ্যের প্রতি সমাজের বিরূপ প্রতিক্রিয়া এবং অন্যান্য বাধা বিপত্তিকে বহিরাগত কারণ হিসেবে দায়ী করে থাকেন। এছাড়া অধিক চিন্তা, ভয়, উদ্বেগ থেকেও ফ্রাস্ট্রেশনের সৃষ্টি হয়ে থাকে।

ফ্রাস্ট্রেশনের রকমফের

ফ্রাস্ট্রেশন মূলত দুই প্রকার। প্রাইমারী ফ্রাস্ট্রেশন এবং সেকেন্ডারি ফ্রাস্ট্রেশন। প্রাইমারী ফ্রাস্ট্রেশন বলতে মূলত বোঝায় যখন কেউ একজন তার কোনো একটি প্রাথমিক প্রয়োজন মেটাতে ব্যর্থ হয়। এক্ষেত্রে ব্যক্তির কাছে প্রয়োজনটির প্রাধান্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ এবং এখানে ব্যর্থতাকেই ব্যক্তি বড় করে দেখেন। যেমন কেউ হয়ত পরের দিন অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে ব্যর্থ হচ্ছে। ব্যক্তির কাছে এই ব্যর্থতাই তখন ফ্রাস্ট্রেশনের কারণ। সেকেন্ডারি ফ্রাস্টেশনে একটি দৃশ্যমান বাহ্যিক কারণের উপর জোর দেয়া হয়। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় উক্ত ব্যক্তি যদি লাউডস্পীকারে উচ্চস্বরে গান বাজানোর কারণে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে ব্যর্থ হন তখন তিনি লাউডস্পীকারের উপস্থিতির কারণে ফ্রাস্ট্রেশন বোধ করেন।

ফ্রাস্ট্রেশনের ফলে সাধারণত মানুষ বিরক্ত বোধ করে থাকে এবং সেটিকে কাটিয়ে উঠতে সে আক্রমণাত্মক হয়ে উঠতে পারে। অনেক সময় দেখা যায় তাদের এই আক্রমণাত্মক ব্যবহারের ফলে তারা তাদের ফ্রাস্ট্রেশনের মূল কারণ চিহ্নিত করতে ব্যর্থ হয় এবং সেটির সমাধান তখন অনেকটা অসম্ভব হয়ে পড়ে।

ফ্রাস্ট্রেশন থেকে মুক্তি

ফ্রাস্ট্রেশনের সমাধান হিসেবে সাইকোলজিস্টরা সাধারণত ফ্রাস্ট্রেশনের মূল কারণ কিংবা এর উৎপত্তি কে চিহ্নিত করে সে অনুযায়ী কাজ করতে বলে থাকেন। ফ্রাস্টেশনের সময় রাগান্বিত না হয়ে ফ্রাস্ট্রেশনকে একটি স্বাভাবিক বিষয় হিসেবে মেনে নিয়ে শান্ত থাকলে এবং মেডিটেশন বা অন্যান্য উপায়ে নিজেকে “শীঘ্রই ফ্রাস্ট্রেশন কেটে যাবে” এই বিশ্বাস নিয়ে পুনরায় কাজ শুরু করলে ব্যক্তি আবারও স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে পারেন। ফ্রাস্ট্রেশন মানেই থেমে যাওয়া নয়। বরং বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে ফ্রাস্ট্রেশন আমাদের জন্য শাপেবর হয়ে আসতে পারে। ফ্রাস্ট্রেশনের সময় নিজের সক্ষমতার উপর বিশ্বাস রেখে কাজ করলে এবং কাজের প্রতি দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে থাকলে কাজ সম্পন্ন করার বিভিন্ন উপায় সামনে আসতে পারে যা ব্যক্তির ব্যবস্থাপনামূলক দক্ষতা এবং সৃজনশীলতার দিকটিকে ফুটিয়ে তোলে।

আশিক মাহমুদ

মায়ের মনখারাপ

Share

রিনার বাচ্চার বয়স এক মাস হলো। পরিবারে এখনো নবজাতকের আগমনের উৎসব চলছে। সবার আকর্ষণ কেন্দ্র এই বাচ্চা। মা হতে পেরে রিনা খুব খুশি হলেও কিছুদিন হলো তার মেজাজ খিটখিটে। তার কিছুই ভাল লাগে না,সারাদিন মন খারাপ থাকে, প্রায়ই কান্না করে এমনকি বাচ্চার কাজ করতেও বিরক্ত লাগে ইদানিং। রিনা তার আকস্মিক পরিবর্তন বুঝতে পারলেও কিভাবে কার কাছে যাবে বুঝতে পারে না। সাথে তার পরিবারের কেউ তাকে বুঝতে চেষ্টা করে না। হঠাৎ একদিন রিনার বান্ধবী তার বাসায় আসে। রিনার ক্লান্তি মাখা চেহারা দেখে তিনি রিনাকে তার মানসিক অবস্থা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেন। সব কথা শোনার পর উনি বুঝতে পারেন রিনা পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশনে ভুগছে।

লক্ষণ:
রিনার অবস্থাকে মনোবিজ্ঞানীদের ভাষায় পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশন বলা হয়। পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশন সন্তান জন্মের ২ বা ৩ সপ্তাহ পর দেখা দেয়। প্রথমে মনখারাপ, মেজাজ খিটখিটে হয় যেটাকে বেবি-ব্লু বলা হয়। কিন্তু এই লক্ষণ গুলো যখন তীব্র হয়ে যায় এবং এর সাথে আরো অনেক লক্ষণ যোগ হয় যেমন উদ্বেগ, হতাশা, নিজের ও আশেপাশের মানুষের উপর রাগ এবং তাদের এড়িয়ে চলা, প্রচন্ড মুড সুইং, প্রায়ই কান্না করা ইত্যাদি।

রিনার অবস্থাকে মনোবিজ্ঞানীদের ভাষায় পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশন বলা হয়। পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশন সন্তান জন্মের ২ বা ৩ সপ্তাহ পর দেখা দেয়। প্রথমে মনখারাপ, মেজাজ খিটখিটে হয় যেটাকে বেবি-ব্লু বলা হয়। কিন্তু এই লক্ষণ গুলো যখন তীব্র হয়ে যায় এবং এর সাথে আরো অনেক লক্ষণ যোগ হয় যেমন উদ্বেগ, হতাশা, নিজের ও আশেপাশের মানুষের উপর রাগ এবং তাদের এড়িয়ে চলা, প্রচন্ড মুড সুইং, প্রায়ই কান্না করা ইত্যাদি।

কারণ:
মা হওয়ার পর শারীরিক, মানসিক ও বিভিন্ন পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে একজন নারীকে যেতে হয়। শরীরের বিভিন্ন ধরণের হরমনের উঠা-নামার ফলে মূলত একজন মা এই অনুভূতির ভিতর দিয়ে যায়। এর সাথে যোগ হয় মায়ের দায়িত্ব পালন, নির্ঘুম রাত ও পরিবারের থেকে এক ধরণের দায়িত্ব পালনের চাপ ও প্রত্যাশা। এগুলো নতুন মায়ের মধ্যে পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশনের সূচনা করে।

প্রতিকার:
প্রথমে পরিবারের সদস্যদের এগিয়ে আসতে হবে। তাদের সাপোর্ট একজন মায়ের জন্য খুবই জরুরী এবং অনেক সময়ই পারিবারিক সাপোর্টের কারণেই একজন মা এই পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশন থেকে কাটিয়ে উঠতে পারে। কিন্তু যে লক্ষণগুলো উপরে বলা হলো তা যদি মাত্রাতিরিক্ত হয়, ২ সপ্তাহ অতিক্রম করে, প্রতিদিনের কাজে বাধা হয়ে দাড়ায় এবং আত্মহত্যার চিন্তা বা চেষ্টা থাকে (খুবই কম ) তাহলে অবশ্যই প্রোফেশনাল হেল্প বা মনোবিজ্ঞানীর শরণাপন্ন হওয়া প্রয়োজন।

এতক্ষণ মায়েদের কথা বললেও বাবারাও এর থেকে মুক্ত নয়। বাবাদের মধ্যেও এই লক্ষণগুলো দেখা যায় কারণ মায়েদের সাথে তাদেরও জীবনে পরিবর্তন আসে।

প্রায় প্রত্যেক মায়েরাই  পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশনের মধ্য দিয়ে যায় যেটি অস্বাভাবিক কিছু নয়। পারিবারিক সহযোগিতাই পারে মায়ের মন ও স্বাস্থ্য ভাল রাখতে। তাই পরিবারের সদস্যদের সহযোগিতামূলক আচরণ করা উচিত। 

ভালো রাখি মায়েদের।

নুজহাত জাহানারা

মনঋতুর আদ্যোপান্ত

Share

গত লেখায় আমরা জেনেছিলাম ইউনিপোলার ডিপ্রেশন সম্পর্কে। এই ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তি প্রায় সময়ই শুধুমাত্র ডিপ্রেসনে ভুগে থাকেন। কিন্তু যদি আক্রান্ত ব্যক্তিটি কখনো অত্যন্ত ডিপ্রেশন আবার কখনো অত্যন্ত আনন্দিত অবস্থায় থাকে তখন আমরা সেটাকে কি বলতে পারি? মনোবিজ্ঞানীরা ব্যক্তির এই মানসিক অবস্থার নাম দিয়েছিলেন “ম্যানিয়াক ডিপ্রেশন”; পরে এটির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় “বাইপোলার ডিসঅর্ডার”।

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত কারা?

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যাক্তি উপর্যুপরি প্রচন্ড রকমের মুড সুইং এর শিকার হন। কখনো অত্যন্ত ডিপ্রেসড থাকেন; এতটাই ডিপ্রেসড থাকেন যে ব্যক্তি আত্মহননের সিদ্ধান্তও গ্রহণ করতে পারেন আবার কখনো একজন ম্যানিয়াকের মত আচরণ করেন (ম্যানিয়া হচ্ছে ডিপ্রেশনের ঠিক উল্টো একটি অবস্থার নাম। এই পর্যায়ে ব্যক্তি অত্যন্ত উৎফুল্ল বোধ করেন)। ব্যক্তি তার এই ডিপ্রেশন কিংবা ম্যানিয়া ফেজটিতে সপ্তাহ কিংবা কখনো মাসব্যাপী অবস্থান করেন। মূলত ব্যক্তি এই দুই ধরণের অবস্থার মধ্যে প্রতিনিয়ত বসবাস করতে শুরু করেন বলেই একে বাইপোলার নামে অভিহিত করা হয়েছে। মনোবিজ্ঞানী ওয়াইনরেবের ভাষায় বাইপোলার ডিসঅর্ডার মূলত আমাদের মস্তিষ্কের একটি সমস্যা যা কিনা আমাদের মানসিক অবস্থার ওঠানামা করার জন্য দায়ী। এই ওঠানামা এতটাই প্রকট হয় যে, এটি আমাদের দৈনন্দিন কাজকর্মে যথেষ্ঠ ব্যাঘাত ঘটাতে সক্ষম। মানসিক সমস্যার তীব্রতার উপর ভিত্তি করে বাইপোলার ডিসঅর্ডারকে দুইটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়। ১) বাইপোলার ১ ডিসঅর্ডারঃ এখানে ব্যক্তি কমপক্ষে একবার ম্যানিয়া এবং তার আগে ডিপ্রেশন ফেজের মুখোমুখি হন। ২) বাইপোলার ২ ডিসঅর্ডারঃ এখানে ব্যক্তি একাধিকবার ডিপ্রেশনের শিকার হন এবং কমপক্ষে একবার হাইপো ম্যানিয়া ফেজে অবস্থান করেন। হাইপো ম্যানিয়াক ব্যক্তির ঘুম কম হয় এবং অত্যন্ত চঞ্চল প্রকৃতির হয়ে থাকেন। এছাড়া উৎফুল্লতা এবং প্রতিযোগী মনোভাব পোষণ করেন। তিনি প্রায়ই মিশ্র রকমের অনুভূতি অনুভব করেন। দুই ধরণের ক্যাটাগরিতেই ব্যক্তি প্রচন্ড রকমের মুড সুইং এর মধ্য দিয়ে যান।

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের লক্ষণগুলোকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়।
১) ম্যানিয়াক সিম্পটম-

  • অদ্ভুত বোধ করা।
  • উদাস কিংবা একঘেয়েমিতা।
  • বিভ্রান্ত বোধ করা।
  • উৎফুল্ল ব্যক্তির মনে হয় যে তারা যে কোনো কিছুই করতে পারেন এবং এই চিন্তা থেকে তারা বিপদজনক কাজ করে বসতে পারেন।
  • ব্যক্তির আচরণে হঠাৎ করে চিন্তার উদয় হওয়া আবার হঠাৎ ই সেটি মিলিয়ে যেয়ে নতুন কোনো চিন্তার উদয় হওয়া।
  • চঞ্চলতা কিংবা কখনো আক্রমনাত্মক ব্যবহার দেখা দেয়।

২) ডিপ্রেশন সিম্পটম

  • হতাশা
  • নিজেকে দোষী এবং ব্যর্থ মনে করা
  • উদ্বিগ্নতা
  • ঘুমের ব্যাঘাত
  • দুঃখী মনোভাব
  • বিরক্তিবোধ, ইত্যাদি।

ম্যানিয়াক ব্যাক্তি কখনো নিজেকে অত্যন্ত সফল এবং সুখী ভাবেন আবার হঠাৎই ডিপ্রেশন ফেজে হতাশায় নিমজ্জিত হন। কমপক্ষে সাত দিন থেকে বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে দুইধরণের লক্ষণই বারবার দেখা গেলে ব্যাক্তি বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত বলে ধরে নেয়া যায়।

কি কারণে বাইপোলার ডিসঅর্ডার হতে পারে?

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের কারণ হিসেবে মূলত বিজ্ঞানীরা আমাদের মস্তিষ্কের অস্বাভাবিক কার্যক্রমকে চিহ্নিত করেছেন। নোরেনেফ্রিন হরমোনের অধিক ক্ষরণের ফলে ম্যানিয়া এবং স্বল্প সেরোটোনিন ক্ষরণের ফলে ডিপ্রেশন ফেজের উৎপত্তি হয়। কিছু গবেষক নিউরন মেমব্রেনের ভেতরে এবং বাইরে আয়নের অস্বাভাবিক চলাচল এবং জেনেটিক এ্যাবনর্মালিটিকে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের জন্য দায়ী করছেন।

তবে সুখের বিষয় হচ্ছে বাইপোলার ডিসঅর্ডার দীর্ঘস্থায়ী সমস্যা হলেও এটি সমাধানযোগ্য। বাইপোলার ডিসঅর্ডার ট্রিটমেন্টের প্রধান লক্ষ্য থাকে ম্যানিয়াক এবং ডিপ্রেশন ফেজের পুনরাবৃত্তির হার কমানো। সাইকিয়াট্রিস্ট রোগীর অবস্থা অনুযায়ী তাকে এ্যান্টিসাইকোটিস মেডিসিন কিংবা কগনিটিভ বিহেভিয়ারাল থেরাপী কিংবা ইলেক্ট্রো কনভালসিভ থেরাপীর আওতায় আনেন। সঠিক সেবার মাধ্যমে ৩ থেকে ৪ মাসের মধ্যে রোগীর অবস্থার উন্নতি দেখা যায়।

বাইপোলার ডিসঅর্ডার সহ অন্যান্য মানসিক রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা সাধারণত তাদের অসুস্থতা প্রকাশের আশঙ্কায় থাকেন কারণ তারা মনে করেন যে তারা সমাজের দ্বারা প্রত্যাখাত হতে পারেন কিংবা পাগল বলে অভিহিত হতে পারেন। এই ভয়টি আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিত্সা গ্রহণ থেকে বিরত করতে পারে যা তাদের পরিস্থিতি আরও খারাপ করে দেয়। লিন্ডন (২০১১) এর মতে, দুই ধরণের ভয় কাজ করে; সাধারণ মানুষের বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত রোগীর প্রতি ভয় এবং রোগীর নিজের ভয়। রোগীর নিজের ভয় থাকে মূলত নিজেকে নিয়ে উৎপন্ন হতাশা এবং স্বল্প আত্মমর্যাদা।  যে ব্যক্তি উভয় ধরণের ভয়ে  ভুগছেন তিনি নিঃসন্দেহে মানসিক সাহায্য এবং প্রিয়জনের সমর্থন না পেলে এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারবেন না। বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রতি আমাদের আরো বেশি সহানুভূতিশীল হতে হবে।

-আশিক মাহমুদ

বিষন্নতা বৃত্তান্ত

Share

খুব হাসিখুশি প্রাণবন্ত রাজীবের জীবন যেন হঠাৎ করেই থমকে গেছে। এক অদ্ভুত শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে তার মনে। সকালে ঘুম থেকে উঠলেও  রাজীব ঘন্টার পর ঘন্টা বিছানায় পড়ে থাকে। নানা অজুহাত‌ দেখিয়ে সে কয়েকদিন অফিসে যায়নি। তার খুব জরুরি প্রেজেন্টেশন ছিল আজকে অথচ তার মনেই নেই। অফিসের ম্যানেজারের ফোন পেয়ে রাজীবের মধ্যে খুবই হীনমন্যতাবোধ কাজ করছে। ফোনটা রেখে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে রাজীব ভাবতে থাকে সে‌ হয়ত কোন কিছুরই যোগ্য না। রাজীবের সবচেয়ে কাছের বন্ধু অভি গত কয়েকদিন তাকে ফোন করছে কিন্তু রাজীব বারবার কেটে দিয়েছে। তার মনে অনেক কিছু বলার আছে অথচ কারও সাথে কথা বলতেও প্রচন্ড দ্বিধা হচ্ছে।  প্রতিদিন এভাবেই তার দিন চলে যাচ্ছে তীব্র মানসিক যন্ত্রণায়। অথচ কয়েক মাস আগেও রাজীবের অবস্থা এমন ছিল না‌।  একরকম জোর করেই অভি রাজীবকে সাইকোলজিস্ট এর কাছে নিয়ে যায়। রাজীবের গত কয়েক মাসের ঘটনার বিবরণ থেকে জানা গেল সে বিষন্নতায় ভুগছে।

বিষন্নতা কী?

বিষন্নতা বা ডিপ্রেশন ব্যাপারটি বেশ জটিল এবং এর প্রেক্ষাপট বিশাল। এটি একটি সাইকোলজিক্যাল ডিজঅর্ডার। ডিপ্রেশনকে মূলত দুই ভাগে ভাগ করা যায়- unipolar depression এবং bipolar disorder। সাধারণত ডিপ্রেশন বলতে আমরা Unipolar Depression কেই বুঝি। DSM-5 অনুযায়ী,‌ দুই সপ্তাহের অধিক সময় ধরে ব্যক্তির মধ্যে ক্রমাগত ডিপ্রশনের বিভিন্ন লক্ষণ দেখা দিলে ব্যক্তি ডিপ্রেশনে ভুগছে ধরা হয়। সময় ব্যবধান(duration) এবং লক্ষনের উপর ভিত্তি করে এর মাত্রা ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে।

ডিপ্রেশনের লক্ষণসমূহ

ডিপ্রেশনের লক্ষণগুলোকে পাঁচটি ক্ষেত্রে ভাগ করা যায়। প্রতিটি ক্ষেত্রেরই আলাদা আলাদা সাইকোলজিক্যাল টার্ম রয়েছে। বোঝার সুবিধার্থে এখানে প্রত্যেক ক্ষেত্রের কিছু উদাহরণ দেয়া হল।

১| ব্যক্তির মধ্যে নেতিবাচক আবেগ যেমন: কষ্ট, রাগ, উদ্বেগ

বেড়ে যায়। কোন কোন সময় ব্যক্তি হয়ত কোন কাজেই আর আনন্দ বা আগ্রহ খুঁজে পায়না।

২| ব্যক্তির মধ্যে কাজ করার অনুপ্রেরণা বা উদ্যোগ, স্বতঃস্ফূর্ত মনোভাব থাকেনা। এমনকি বন্ধু বান্ধবের সাথে কথা বলা বা ঘুরাফিরা করাও নানা অজুহাতে এড়িয়ে যায়।

৩| ব্যক্তির আচরণে স্পষ্ট পরিবর্তন আসে। তারা আগের মত কাজে মনোযোগ দিতে পারেনা। হঠাৎ করেই হয়ত আড্ডায় প্রাণবন্ত মানুষটি একা থাকা শুরু করে।

৪| ডিপ্রেশনে ভোগা মানুষ প্রায়ই হীনমন্যতায় ভোগে। অপরের তুলনায় নিজেকে ছোট মনে করে‌ আর নিজেকে নিয়ে হতাশায় ভোগে।

৫| ডিপ্রশনের কারণে মাথাব্যথা, মাথা ঘোরানো, খাওয়ায় অরুচি ইত্যাদি বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

ডিপ্রেশন কেন হয়?

ডিপ্রেশন বিভিন্ন কারণে হতে পারে। ডিপ্রেশন হতে পারে সরাসরি জীবনের কোন ঘটনার কারণে এমনকি মানবদেহের হরমোনের কারণেও হতে পারে। সেরেটোনিন এবং নরএপিনেফ্রিন হরমোন নিঃসরণ কমে গেলে ব্যক্তির মধ্যে ডিপ্রেশন দেখা দিতে পারে। ছোটবেলার কোন দুঃসহ স্মৃতি মানুষের মনে জায়গা করে ফেললেও মানুষ ডিপ্রেশনে ভুগতে পারে। তাছাড়া আরও অনেক কারণে ব্যক্তি বিষন্ন হয়ে পড়ে যেমন: নেতিবাচক চিন্তা ধারনা, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে, সামাজিক চাপে  ইত্যাদি।

ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়

ভিন্ন ভিন্ন মানুষের মধ্যে ডিপ্রেশনের কারণ যেমন ভিন্ন হয় তেমনি ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়ও ব্যক্তি বিশেষে ভিন্ন ভিন্ন হয়। দক্ষ কাউন্সিলর এর সাথে নিজের সমস্যা আলোচনা করে এর সমাধান পাওয়া যেতে পারে। তাছাড়া নিজের নেতিবাচক চিন্তাগুলো ভালভাবে চিহ্নিত করে চিন্তায় ইতিবাচকতা আনতে হবে। ধীরে ধীরে বাইরের মানুষ আর পরিবেশে খাপ খাইয়ে নেয়ার চেষ্টা করতে হবে। বন্ধু নির্বাচনে সতর্ক হতে হবে। অনেক সময় বন্ধুদের সাথে শেয়ার করলেই সমাধান বেরিয়ে আসতে পারে আবার অনেক ‌সময় বন্ধুরাই বাঁকা কথার দ্বারা ব্যক্তির মধ্যে হীনমন্যতাবোধ সৃষ্টি করে। নিজের সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা আর আত্মবিশ্বাস গড়ে তুলতে হবে।

(সামিরা মাহজাবিন)

সময় নষ্ট নাকি নিজেকে সময় দেয়া?

Share

রাইসা ইউনিভার্সিটির শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। তার বাসা ইউনিভার্সিটি থেকে বেশ দূরে। রাইসার প্রতিটা দিন শুরু হয় ভোরবেলা। ইউনিভার্সিটির সকাল আটটা থেকে বিকেল পর্যন্ত ক্লাস করে, তারপর টিউশন করানো শেষে ঢাকা শহরের জ্যাম ঠেলে বাসায় আসতে আসতে রাইসার প্রতিদিনই অনেক দেরি হয়ে যায়। ক্লান্ত শরীরে রাইসার আর কোন কাজ করতেই ইচ্ছা করে না। এভাবে প্রতিদিনকার ব্যস্ততার মাঝে রাইসার প্রায়ই মনে হয় তার সারাদিন প্রচুর কাজ করার পরেও কোন কাজই ঠিকমতো হচ্ছে না। এই কারণে সে ইদানিং বেশ অস্বস্তি বোধ করছে আর কাজের প্রতি সঠিকভাবে মনোযোগ দিতে পারছেনা।

প্রতিদিনের ব্যস্ত জীবনে রাইসার মত আমাদের অনেকের  মনে হয় সময় কোথা দিয়ে পার হয়ে গেল টেরই পাওয়া গেল না। অত্যন্ত ব্যস্ততার কারণে আমরা না আপনজনদের সময় দিতে পারি না পারি নিজেকে সময় দিতে। অনেক সময় আবার শখের বা বিনোদনমূলক কাজগুলোকে কেউ কেউ সময় নষ্ট বলেও মনে করে। কিন্তু আসলেই কি তাই? নিজেকে সময় দেয়া বা self care মোটেও সময় নষ্ট করা নয়। বরং এটা মানুষের মন ভালো রাখতে ও কাজে মনোযোগী হতে সাহায্য করে। নিজের যত্ন নেওয়ার বিষয়টিকে প্রায় মানুষই যথাযথ গুরুত্ব দেয়না। অথচ নিজের প্রতি আমাদের এই সামান্য মনোযোগ আমাদের আমাদের স্ট্রেস লেভেল কমিয়ে কর্মক্ষমতা বাড়াতে আর কাজে উৎফুল্ল থাকতে সাহায্য করতে পারে। গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, বিনোদনমূলক কাজ বা recreational activities মানুষের স্ট্রেস, anxiety বা উদ্বিগ্নতা, ডিপ্রেশন কমাতে এবং আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করে। এটা মানুষের মধ্যে ইতিবাচক চিন্তাধারার বিকাশ ঘটাতেও সহায়তা করে। বিভিন্ন মানুষের self care এর ধরন বিভিন্ন রকমের হতে পারে। এর কোন ধরা বাঁধা নিয়ম নেই। যেমন অনেক মানুষই ছুটি পেলেই শহর থেকে দূরে প্রকৃতিকে কাছ থেকে দেখতে পাহাড় বা সমুদ্র দেখতে ছুটে যান। ভ্রমণ মানুষের মাঝে অনন্য প্রাণশক্তি আর পজিটিভ এনার্জির সঞ্চার করে যা মানুষকে উদ্যোমী করে তোলে। আবার অনেকে ভ্রমনের চেয়ে বেশি বই পড়ে উজ্জীবিত হয়। সেক্ষেত্রে শত ব্যস্ততার মাঝে কিছুটা সময় বই পড়লে তার সময় নষ্ট হয়না বরং তা পরবর্তীতে তার কাজের প্রতি মনোযোগী হতে সাহায্য করে। প্রত্যেক মানুষেরই আলাদা পছন্দ থাকতে পারে এবং সে অনুযায়ী self care এর ধরন ভিন্ন ভিন্ন হয়। দিনের কিছুটা সময় পছন্দের কাজে ব্যয় করা মানুষের মন ভালো রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

শখের বা পছন্দের কাজ করার সময় প্রায়শই সময় কখন পার হয়ে যায় টের পাওয়া যায় না। এক্ষেত্রে নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ আর কাজের প্রায়োরিটির কথা মাথায় রাখাটা জরুরি। অনেক স্ট্রেসপূর্ণ কোন সপ্তাহের শেষে নিজের পছন্দের মুভি দেখাটা আনন্দের হলেও পরীক্ষার আগের দিন পরীক্ষার পড়া বাদ দিয়ে পছন্দের মুভি দেখাটা ক্ষতির কারণ হিসেবেই গণ্য হবে।

মানুষের জীবনে কাজ আর বিশ্রামের সমন্বয় থাকাটা খুবই জরুরি। অতিরিক্ত কাজের চাপ যেমন মানুষের জন্য ক্ষতিকর তেমনিভাবে প্রয়োজনীয় কাজ ফেলে রেখে অতিরিক্ত সময় recreation এ ব্যয় করাটাও কাম্য নয়।

চঞ্চলতার ডিসঅর্ডার

Share


রাতুলের বয়স সাত। তার বাবা-মা তাকে নিয়ে খুবই চিন্তিত। কারণ এ নিয়ে ২ মাসের মাথায় ৫ম বারের মত রাতুলের শিক্ষক তার বাবাকে স্কুলে ডেকে তার নামে অভিযোগ দিয়েছে যে সে খুব চঞ্চল। রাতুল ক্লাসে অনেক কথা বলে। প্রায়ই শিক্ষকের দিকে মনোযোগ না দিয়ে কাগজ নিয়ে খেলতে থাকে। শিক্ষক তাকে ধমক দিলে সে নিজেও তার জিদ প্রকাশ করে। ক্লাসে সে বড়ই অধৈর্য। ঠিকমত ক্লাসের কাজ করেনা। খাতাপত্র হারিয়ে ফেলে। এই শুনে রাতুলের বাবার মনে পড়লো আসলেই তো! রাতুল গত এক মাসে ১১ বার তার পেনসিল রাবার হারিয়ে ফেলেছে, বাংলা বই এই নিয়ে ৩বার কিনে দেয়া হয়েছে। শিক্ষক রাতুলের বাবাকে পরামর্শ দিলেন রাতুলকে নিয়ে কোনো একটি মানসিক চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে।

ADHD বা Attention Deficit hyperactivity disorder কে বাচ্চাদের মধ্যে অন্যতম একটি নিউরোডেভেলপমেন্টাল ডিসঅর্ডার হিসেবে গণ্য করা হয়। এটি সাধারণত বাচ্চাদের মধ্যেই বেশি দেখা যায় তবে এর বিস্তৃতি বড়দের মধ্যেও পাওয়া যায়। ADHD তে আক্রান্ত বাচ্চারা সাধারণত কোনোকিছুতে মনোযোগ ধরে রাখতে বেশ ঝামেলার মধ্যে পড়ে। অনেকসময় দেখা যায় নিজদের ব্যবহারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে ব্যর্থ হয় কিংবা অতিচঞ্চল স্বভাবের হয়ে থাকে।

লক্ষণঃ কিভাবে বুঝবেন আপনার বাচ্চা ADHD তে আক্রান্ত? বাচ্চাদের মধ্যে মনোযোগ হারিয়ে ফেলা কিংবা চঞ্চলতা খুবই স্বাভাবিক একটি জিনিস। তবে এই ADHD তে আক্রান্ত বাচ্চাদের মধ্যে এই চঞ্চলতা কিংবা মনোযোগহীনতা খুব প্রকট ভাবে দেখা যায়। কিছু লক্ষণ হলো- মনোযোগ হারিয়ে দিবাস্বপ্ন দেখা, যেকোনো বিষোয় নিয়ে প্রচণ্ডরকমের অধৈর্য হওয়া, যেকোনো কিছু ভুলে যাওয়া, স্কুলে কিংবা স্কুলের বাইরে বারবার জিনিসপত্র হারিয়ে ফেলা, জিদ দেখানো, অন্যদের সাথে সহজে মিশতে না পারা। ADHD বাচ্চার স্কুল এবং বাইরের পরিবেশের সাথে খাপ খাওয়াতে সমস্যার সৃষ্টি করে বিধায় বাচ্চাদের মধ্যে এই লক্ষণগুলো দেখা দিলে তাকে শুধুমাত্র “আরে ও একটু চঞ্চল, বড় হলে ঠিক হয়ে যাবে” ইত্যাদি বলে অবহেলা করা উচিত নয়।

বাচ্চাদের ভিতর সাধারণত তিন ধরণের ADHD দেখা যায়। ১) প্রিডমিনেন্টলি ইনএ্যাটেনটিভ প্রেজেন্টেশনঃ এখানে বাচ্চারা তাদের যেকোনো কাজ সম্পন্ন করতে অসুবিধা বোধ করে। মনোযোগ দিতে পারেনা অথবা নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করতে পারেনা। খুব সহজেই বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে, স্কুলের রুটিন কিংবা ক্লাসের কাজ ভুলে যায়।  ২) প্রিডমিনেন্টলি হাইপার এ্যাক্টিভ-ইম্পালসিভ প্রেজেন্টেশনঃ এখানে বাচ্চাকে অতিরিক্ত উসখুস করতে দেখা যায়। কোনো একজায়গায় সে স্থির হয়ে বসতে পারেনা; অস্থিরতার মধ্য দিয়ে যেতে থাকে। সারাক্ষণ দৌড়-ঝাঁপের মধ্যে থাকতে দেখা যায়। স্কুলে অন্যদের কাজে অনবরত বিঘ্ন ঘটানো, অন্যদের জিনিসপত্র কেড়ে নেয়া, নির্দেশনা মানতে না চাওয়া কিংবা অধৈর্য হয়ে যাওয়া ইত্যাদি লক্ষণ দেখা যায়। এরকম অতিচঞ্চলতা বাচ্চার নিজের এবং তার আশেপাশের মানুষের দুর্ঘটনার কারণ হতে পারে। ৩) কম্বাইন্ড প্রেজেন্টেশনঃ প্রথম দুই ধরণের লক্ষণগুলো সমানভাবে বাচ্চার মধ্যে প্রকাশ পায়। সময়ের সাথে লক্ষণগুলোর মাঝে বেশ পরিবর্তন দেখা যায়।

ADHD কেন হয়? বিজ্ঞানীরা ডিসঅর্ডারটির মূল কারণ বের করতে না পারলেও মূলত জেনেটিক সমস্যাকে ADHD এর জন্য দায়ী করেছেন। ব্রেইনে ডোপামিন ট্রান্সমিশনের পরিমাণ কম হওয়া ছাড়াও আরো কিছু কারণকে বিজ্ঞানীরা প্রাথমিক ভাবে ADHD এর জন্য দায়ী করেন। যেমন- ব্রেইন ইঞ্জুরি, গর্ভাবস্থায় মায়ের এ্যালকোহল কিংবা অন্যান্য ড্রাগের সাথে জড়িত থাকা, প্রিম্যাচিউর ডেলিভারি, জন্মের সময় বাচ্চার ওজন কম থাকা ইত্যাদি। বাচ্চার ADHD এর কারণ হিসেবে অতিরিক্ত টিভি দেখা, প্যারেন্টিং স্টাইল কিংবা আশেপাশের পরিবেশের সম্পৃক্ততা থাকার কথা বিজ্ঞানীরা অস্বীকার করলেও এগুলো ADHD এর লক্ষণগুলোর প্রবলতা বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে বলে কিছু গবেষণাই পাওয়া যায়।

চিকিৎসাঃ সাধারণত ADHD এর চিকিৎসা হিসেবে মূলত বিহেভিয়ার থেরাপি এবং মেডিকেশনকেই বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়। ৪-৫ বছর বয়সীদের জন্য থেরাপী, এবং বাচ্চার বাবা-মার জন্য আলাদা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাকেই প্রাথমিক চিকিৎসা বলে মনে করা হয়। এছাড়া ডিসঅর্ডারটির প্রাবল্যতা অনুসারে পরবর্তীতে বাচ্চাকে মানসিক চিকিৎসকের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে তার নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে বলা হয়।

ADHD তে আক্রান্ত বাচ্চারা সাধারণত হীনমন্যতায় ভুগে থাকে কারণ তারা কারো সাথে সঠিকভাবে মিশতে পারে যার কারণে তাদের বন্ধু সংখ্যা নাই বললেই চলে। এবং পরবর্তীতে তাদের ডিপ্রেশনে ভোগার সম্ভাবনার হার খুব বেশি। তাই তাদের সাথে তাদের পরিবার এবং আশেপাশের মানুষের সহযোগিতাই পারে তাদের জীবন অনেকখানি সহজ করে দিতে।সুস্থ থাকা প্রত্যেক বাচ্চার জন্যই অতি গুরুত্বপূর্ণ। এবং যখন বাচ্চাটি ADHD ডিসঅর্ডার সম্পন্ন তখন তার জন্য এটির গুরুত্ব আরো কয়েকগুণ বেড়ে যায়। থেরাপী কিংবা মেডিটেশনের পাশাপাশি একটি সুস্থ জীবনধারা বাচ্চাকে ADHD এর লক্ষণগুলোর সাথে মানিয়ে চলতে সাহায্য করে।

নুজহাত জাহানারা

অ্যাকুয়াম্যান নাকি অ্যাকুয়াফোবিক?

Share

তাহমিদ পানি ভয় পায়। এতটাই ভয় পায় যে কোমর পানিতে নামতেও তার প্রচন্ড ভয়, “যদি ডুবে যাই”। পানির প্রতি এই ভয়ের ফলে সে নৌকা বা লঞ্চেও চড়তে চায় না। নদী দেখলেই তার মধ্যে এক ধরণের অস্থিরতা কাজ করে। সে প্রচন্ড রকমের মানসিক চাপ অনুভব করতে শুরু করে। মাঝে মাঝে দম বন্ধ হয়ে আসে।

আমাদের আজকের চরিত্র তাহমিদের রয়েছে অ্যাকুয়াফোবিয়া বা পানিভীতি। পানির প্রতি ভয় আমাদের অনেকেরই রয়েছে। সাগর বা খরস্রোতা নদী দেখে ভয় পাওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। লিন্ডাল এবং স্টিফ্যানসনের মতে বিশ্বের ১.৮% মানুষের অ্যাকুয়াফোবিয়া রয়েছে। যাদের এই অ্যাকুয়াফোবিয়া রয়েছে তারা আসলে কি ভয় পায়? সাধারণত তারা এই ভয় পায় যে তারা ডুবে মারা যাবে কিংবা পানির স্রোতে তারা ভেসে যাবে। অনেকে ভাবে সে এমন ভয়ানক কোনো কিছুর অভিজ্ঞতা হবে যা কিনা শুধুমাত্র কল্পনাই করা যায়; হয়ত পাইরেটস অফ দি ক্যারিবিয়ান কিংবা অ্যাকুয়াম্যান মুভির বিশাল অক্টোপাস “ক্র্যাকেনের” মত কোনো কিছু এসে তাকে গ্রাস করে নিয়ে যাবে। এই পানিভীতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হলে আমাদের জানতে হবে এর কারণ, লক্ষণ এবং এর প্রতিকার সম্পর্কে।

পানিভীতির কারণ হিসেবে মনোবিজ্ঞানীরা মূলত ব্যক্তির পূর্ব অভিজ্ঞতাকেই দায়ী করে থাকেন। হয়ত কেউ পুকুর বা নদীতে গোসল করতে যেয়ে প্রায় ডুবে যাচ্ছিলেন কিংবা বন্ধুরা মিলে মজা করে পানিতে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়েছে অথবা চোখের সামনে কাউকে ডুবে যেতে দেখাও পানিভীতির সৃষ্টি করে। ছোটবেলার পানি সম্পর্কিত কোনো ঘটনার আকস্মিকতা কিংবা বিপজ্জনক ঘটনার অভিজ্ঞতাই পানিভীতি তৈরী করতে পারে। আমেরিকার একটা ঘটনার কথা জানা যায়, যেখানে একটি বাচ্চা মেয়ে তার পরিবারের সাথে পিকনিকে যেয়ে একটা ঝরণার সামনে কিছু লতাপাতার ঝোপে পা আটকে যায়। সে ভয়ে চিৎকার করতে থাকে। তার বাবা মা তাকে সেখান থেকে সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করতে পারলেও আস্তে আস্তে মেয়েটির মধ্যে অ্যাকুয়াফোবিয়ার লক্ষণ দেখা দিতে থাকে। পরে তাকে সাইকোলজিস্টের কাছে নেয়া হলে তার এই অ্যাকুয়াফোবিয়ার কারণ হিসেবে জানা যায় যে ছোটবেলায় সেই ঝোপে আটকে যাবার পর সামনে থাকা ঝরণার প্রবল স্রোত এবং পানির শব্দে সে একটু ভয় পেয়ে গিয়েছিলো যে হয়ত সেই স্রোত তাকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে। ফলে এখনো পানি পড়ার আওয়াজ শুনলে কিংবা গভীর পানি দেখে সে ভয় পাচ্ছে।

ব্যক্তির অ্যাকুয়াফোবিয়ার লেভেল বা প্রাবল্য বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। সাধারণত মানুষ তাদের নিজের উচ্চতার বেশি পানিকেই ভয় পায়। যে ব্যক্তি হাঁটুপানিতে বন্ধুদের সাথে মজা করছে, সেই হয়ত গলা সমান পানিতে নামলে অ্যাকুয়াফোবিক হয়ে পড়ছে। আবার কারো হয়ত পানির স্পর্শ কিংবা পানির গভীরতার কথা চিন্তা করতেই ঘাম ছোটা শুরু হয়েছে। বিভিন্নভাবে ব্যাক্তির ভেতর অ্যাকুয়াফোবিয়ার লক্ষণ বোঝা যায়। গভীর পানি দেখলে অত্যন্ত অস্বস্তিবোধ করা, বুক ধড়ফড় করা। পানির উপস্থিতি টের পেলে শ্বাস প্রশ্বাসে ব্যাঘাত ঘটা এমনকি ব্যক্তি জ্ঞান হারিয়ে ফেলতে পারেন। পানির গভীরতার কথা চিন্তা করে শরীরে কাঁপুনি, ঘাম হওয়া থেকে শুরু করে প্যানিক এ্যাটাক পর্যন্ত হতে পারে।

অ্যাকুয়াফোবিয়ার প্রতিকার অন্যান্য ফোবিয়ার মতই। মনোবিজ্ঞানীদের ভাষায় তিনটি উপায়ে এই ফোবিয়া থেকে প্রতিকার পাওয়া যায়।

১) মডেলিং : এখানে থেরাপিস্ট নিজে পানিতে নামেন এবং অ্যাকুয়াফোবিক ব্যক্তি সেটি দেখেন। কয়েক সেশনের পর অ্যাকুয়াফোবিক ব্যক্তি নিজেও পানির ব্যাপারে সাহস পেতে শুরু করেন।

২) ফ্লাডিং: মনোবিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন একজন অ্যাকুয়াফোবিক ব্যক্তি তখনই পানিভীতি দূর করতে পারবেন যখন ব্যক্তি বারবার পানিতে নিজেকে প্রকাশ করবেন এবং বুঝতে পারবেন পানি আসলে তেমন বিপদজনক কিছু নয়। অর্থাৎ পানিভীতি দূর করতে বারবার পানির কাছে যাওয়াই হচ্ছে অ্যাকুয়াফোবিয়ার অন্যতম প্রতিকার।

৩) সিস্টেমেটিক ডিসেন্সিটাইজেশনঃ এই প্রক্রিয়াটি এক ধরণের চক্র মেনে চলে। এখানে প্রথমে থেরাপিস্ট অ্যাকুয়াফোবিক ব্যক্তিকে রিল্যাক্সেশন ট্রেনিং করান। এরপর তিনি তার সামনে কিছু ঘটনা বর্ণনা করেন এবং ব্যক্তিকে সেটি কল্পনা করতে বলেন। হয়ত প্রথমে তিনি ব্যক্তিকে সুইমিংপুলের পাশে হেঁটে যাওয়ার একটি ঘটনা বর্ণনা করলেন। এরপরের ধাপে ব্যক্তি হয়ত হাত দিয়ে পানিকে স্পর্শ করছে। তার পরের ধাপে ব্যক্তি পানিতে পা ডুবিয়ে বসেছেন। এভাবে  থেরাপিস্ট তার বর্ণনার মধ্যে ঘটনার ইন্টেন্সিটি বাড়াতে থাকেন এবং ব্যক্তির রিএ্যাকশন বুঝে তাকে রিল্যাক্সেশন ট্রেনিং দিতে থাকেন। এটি সাধারণত অত্যন্ত ভয়াবহ রকমের অ্যাকুয়াফোবিক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।

আমাদের নদীমাতৃক বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে একজন মানুষের অ্যাকুয়াফোবিক হওয়াটা যেমন স্বাভাবিক তেমন বিপজ্জনক। অ্যাকুয়াফোবিক ব্যক্তি তার এই পানিভীতি থেকে পরিত্রাণ পেতে থেরাপিস্ট, কাউন্সিলর কিংবা প্রফেশনাল সুইমিং ট্রেইনারের সাহায্য নিতে পারেন।

আশিক মাহমুদ

ভাল থাকুন, ভাল রাখুন

Share

কাজল ব্যাংকে চাকরি করে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অফিস করে বাসায় গিয়ে হাসিমুখে বাসার কাজ যেমন রান্না করা, ছোট বোনকে পড়ানো, অসুস্থ মায়ের দেখভাল, সব কিছু খুব আনন্দের সাথে করতে থাকে কোন ক্লান্তি ছাড়াই। তার আশেপাশের মানুষের সাথে যোগাযোগ রাখা এমনকি নিজের সবচেয়ে প্রিয় কাজ, ছবি আঁকারও সময় বের করেন তিনি। তার মতে তিনি বেশ সুখী জীবনযাপন করছেন। একদিন কাজলের সহকর্মী তার কাছে জীবন নিয়ে নানা অভিযোগ করছিল। “এত কাজ করতে ভাল লাগে! অফিসের ডেডলাইন মাথায় রাখো, বাসার কাজ, বিল দাও! কাজ করতে করতে একদিন মরেই যাব! জীবনে শান্তি বলতে কিচ্ছু নেই আর।” এমনটি ছিল তার অভিযোগ। কাজল সবকিছু শুনে তাকে জীবনে ভাল থাকার কিছু উপায় বললেন যেটা কাজল মনে করেন জীবনে ব্যালেন্সড ভাবে বাঁচতে সাহায্য করে।

কাজল যে উপায়ে তার জীবনযাপন করছেন তাকে পারমা(PERMA) মডেল বলা হয়। নামটি এসেছে ৫টি ক্ষেত্রবিশেষ মিলিয়ে:Positive emotions, Engagement, Relationships, Meaning of life এবং Achievement থেকে।  পারমা মডেল অনুযায়ী, ৫টি ক্ষেত্রবিশেষ মেনে চললে জীবনে সুখী থাকা সম্ভব। প্রথমত, জীবন সম্পর্কে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি রাখতে হবে। জীবনে যা কিছু ঘটেছে বা ঘটছে তাকে খারাপভাবে বা নেতিবাচক ভাবে না নি স্বাভাবিক ভাবে মেনে নেয়া। যত দ্রুত একটি বিষয় স্বাভাবিকভাবে নেয়া যাবে, জীবন তত বেশি সহজ হবে। কোন ঘটনার প্রেক্ষিতে ভাল আউটকাম কি হয়েছে তা যদি খুঁজে বের করা যায় তাহলে বুঝা যাবে একজন ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি সম্পন্ন ব্যাক্তি।

জীবনের ব্যস্ততার মাঝেও নিজের ভাল লাগার কাজটির সাথে লেগে থাকুন যেটাকে এ্যাংগেজমেন্ট বলা হয়। লিখতে, বই পড়তে বা ছবি আঁকতে পছন্দ করেন? সময় করে আপনার নিজের জন্য লেখা, বই পড়া বা ছবি এঁকে ফেলুন। এতে নিজের মনের রেফ্রেশমেন্ট হবে যার ফলে আপনার দৈনন্দিন কাজে কোন ক্নান্তি আসবে না।

আমরা সামাজিক জীব হওয়ায় মানুষের সান্নিধ্য আমাদের প্রয়োজন। তাই আমাদের পরিবার, আশেপাশের মানুষ এবং বন্ধুদের সাথে কোয়ালিটি সম্পর্ক ও সময় কাটানোর মাধ্যমে একজন মানসিকভাবে স্ট্রেস ফ্রী থাকতে পারেন। কারণ ভাল সম্পর্কের ফলে একধরনের মানসিক সার্পোট পাওয়া যায় যেটা আমাদের জীবন অনেকক্ষাণিক সহজ করে দেয়।

এখন একটি বাস্তব উদাহরণের দিকে তাকানো যাক। সেলিব্রিটিদের আর্থিক স্বচ্ছলতা এবং এত খ্যাতি থাকা সত্ত্বেও পরবর্তীতে দেখা যায় তারা নিজ জীবনে অসুখী কিংবা অনেকে তো আত্মহত্যা করে বসেন। তাহলে বোঝা যাচ্ছে, অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতাই শুধুমাত্র একজন মানুষকে সুখী করতে পারে না। তা ছাড়াও আমাদের জীবনের একটি অর্থ বা লক্ষ্য ঠিক করতে হবে। জীবনের লক্ষ্য ছাড়া আমাদের জীবনে এগিয়ে যাওয়া অসম্ভব হয়ে যায়। লক্ষ্য বা অর্থ যে খুব বড় হতে হবে তা না, খুব ছোটও হতে পারে যেটা নিজেকে আনন্দ দিবে। কোন অর্থ বা লক্ষ্য না থাকলে জীবনের সাথে জড়বস্তুর কোন পার্থক্য থাকে না।

জীবনে যা অর্জন, ছোট বা বড়, সেগুলোকে মূল্যায়ন করতে শিখি। মূল্যায়ন করলে নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং সামনে আরো কিছু করার উৎসাহ যোগায়। মূল্যায়ন একটি পজিতিভ প্র্যাক্টিস যেটার কারণে নিজের ভাল দিকগুলোর দিকে ফোকাস করা যায় যেটি সামনে আরো কিছু অর্জনের চাবিকাঠি।

বিজ্ঞানীরা নানা উপায়ে জীবনে ভাল থাকার উপায় বলে গেছেন। তারপরেও জীবনে সুখী থাকার উপায় মানুষভেদে ভিন্ন হয়। তবে আমরা শুধুমাত্র একটি ব্যাসিক উপায় হিসেবে এই পারমা মডেল মেনে চলতে পারি। জীবনে ভাল থাকা কিংবা সুখী থাকাটা একটি বড় অর্জন। নিজে ভাল  থাকলেই আমরা আমাদের চারপাশের মানুষদের ভাল রাখতে পারবো।

আ্যাপ্রিশিয়েট করুন

Share

“তুমি তোমার সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করেছো ইমন। এ প্লাস না আসলেও তোমার রেজাল্ট যথেষ্ঠ ভালো। এটা নিয়ে ভেঙে পড়োনা। এখন থেকে আরো ভালো করে চেষ্টা করো যাতে সামনে এটির চাইতেও ভালো ফলাফল আসে।“ এভাবেই ইমনকে বোঝাচ্ছিলেন তার বাবা। এইতো কয়েকদিন আগে ইমনের মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ পেয়েছে। এ-প্লাসটা শুধুমাত্র ফিজিক্সের জন্য মিস হয়ে গিয়েছে। এ নিয়ে তার হতাশার শেষ নেই। ফলাফল প্রকাশের পর দুইদিন তো ঘর থেকেই বের হয়নি সে। ইমনের বাবা মা তাকে অবশ্য ওর তারিফই করছেন। কারণ তারা দেখেছেন ছেলেটা বেশ চেষ্টা করেছে পরীক্ষার সময়টিতে।

যখন আমরা কারো কোনো কাজের জন্য তার প্রশংসা করি, আমরা সেই ব্যক্তির মনোবল কিংবা আত্মবিশ্বাসটিকে বাড়িয়ে তুলি। অ্যাপ্রিশিয়েশন কিংবা মূল্যবোধ শব্দটি বাইরে থেকে ছোট দেখালেও এর প্রভাব অনেক বড়। কখনো কখনো এটির সঠিক ব্যবহারের ফলে আমরা ব্যক্তিকে তার পরবর্তী কাজগুলোতে আরো বেশি কিছু অর্জন করার প্রেরণা দান করতে পারি। অনেকেই আছেন যারা জানেন এই অ্যাপ্রিশিয়েশনের গভীরতা এবং এর সঠিক প্রয়োগ কিভাবে অন্যকে  মোটিভেট করতে পারে। পরিবার থেকে শুরু করে কর্মক্ষেত্র; সবজায়গাতেই “অ্যাপ্রিশিয়েশন” একটি নেতিবাচক পরিবেশকে ইতিবাচক রূপে পরিবর্তিত করতে পারে। একটু হাসিমুখে ধন্যবাদ জানানো কিংবা সহকর্মীর কোনো সাহায্যের বিপরীতে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করাই পারে আমাদের আশেপাশের পরিবেশের উপর একটি ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে। যখন আমাদের ভাই-বোন কিংবা বন্ধু পরীক্ষায় আশানুরুপ ফলাফল অর্জন করতে না পারে কিংবা আমাদের কোনো সহকর্মী কোনো একটি কাজে ব্যর্থ হন তখন তাদের সমালোচনা না করে অ্যাপ্রিশিয়েট করা উচিত। কারণ এই ছোট একটু অ্যাপ্রিশিয়েশন তাদের মধ্যে আরো ভালো করার প্রেরণা জোগাবে। আমরা যদি তাদের অর্জনকে ছোট করে দেখি কিংবা তাদের কাজের প্রতি অতি সমালোচনামূলক মনোভাব পোষণ করি তবে তাদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। সে নিজেকে মূল্যহীন কিংবা ইউজলেস মনে করতে পারে। এতে বরঞ্চ লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি। ব্যক্তি আরো ভালো কিছু করার উদ্যম হারিয়ে ফেলতে পারে। প্রত্যেকেই চায় অন্যরা তার কাজের প্রশংসা করুক। ব্যক্তির কাজের বিপরীতে তাকে শুধু ধন্যবাদ না বলে “আপনি কাজটি ভালো করেছেন” কিংবা “চালিয়ে যাও” ইত্যাদি শব্দ ব্যবহার করলে সে পরবর্তীতে যেকোনো কাজে আরো ভালো কিছু অর্জন করার চেষ্টা চালায়। হয়ত অফিসের কোনো কাজে বসের বকা খেয়ে কাঁচুমাচু হয়ে থাকা কলিগকে তার চেষ্টার প্রশংসা করলেন, কিংবা পরীক্ষায় খারাপ করে আত্মীয় স্বজনের খোঁচায় জর্জরিত ছেলেকে একটু সাহস দিলেন; হাজারও সমালোচনার মাঝে আপনার একটুখানি অ্যাপ্রিশিয়েশনই হয়ত তাদের দিনটিকে ভালো করে দিতে পারে।

অ্যাপ্রিশিয়েশন শুধুমাত্র কর্মক্ষেত্রে নয় বরং জীবনের সকল ক্ষেত্রে ব্যবহার উপযোগী। পরিবার বন্ধু সবার প্রতি এই মূল্যবোধ অনুশীলন একটি ভালো গুণ। আপনার কোনো বন্ধু পরীক্ষায় মোটামুটি ভালো রেজাল্ট করেছে? তাকে অ্যাপ্রিশিয়েট করুন। সে পরবর্তীতে আরো ভালো কিছু করবার চেষ্টা করবে। আপনার প্রতিবেশী আপনার কোনো উপকার করেছেন? তার এই কাজকে অ্যাপ্রিশিয়েট করুন। আপনার স্বামী কিংবা স্ত্রী আপনার জন্য সুন্দর কোনো উপহার এনেছেন? তাকে হাসিমুখে অ্যাপ্রিশিয়েট করুন। সময়মত অ্যাপ্রিশিয়েট করা মানুষের মধ্যে সম্পর্ক ভালো রাখে। কারো প্রচেষ্টার প্রশংসা করার মাধ্যমে আপনি নিজের একটি ইতিবাচক দিক প্রকাশের সুযোগ পাবেন। এটি প্রমাণ করবে যে আপনি অন্যদের ছোট ছোট কাজেরও মূল্য দিতে জানেন। সেজন্য যখনই সম্ভব আপনার পাশের মানুষটির প্রতি অ্যাপ্রিশিয়েশন দেখানো জরুরী। এতে মানুষের সাথে আপনার সম্পর্কের উন্নতি হবে। অন্যরা আপনাকে গুরুত্ব দিবে ঠিক যেমনটা আপনি তাদের দিচ্ছেন। এটি অল্প হলেও আপনার জীবনের কিছু কাজকে সহজ করে তুলবে।

কৃতজ্ঞতা, মূল্যবোধ কিংবা অ্যাপ্রিশিয়েশন যাই বলা হোক না কেনো; এটি যদি সঠিকভাবে ব্যবহার করা হয় তবে এর সুফল অবশ্যম্ভাবী। গঠনমূলক সমালোচনা উপকারী, তবে চেষ্টা করুন অন্যের কাজের অতি সমালোচনার বদলে প্রশংসা করে তাকে আরো ভালো কিছু করার উৎসাহ দেয়ার। চারপাশের পরিবর্তনগুলো আপনি নিজেই দেখতে পাবেন।

আশিক মাহমুদ