ভাল থাকুন, ভাল রাখুন

Share

কাজল ব্যাংকে চাকরি করে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অফিস করে বাসায় গিয়ে হাসিমুখে বাসার কাজ যেমন রান্না করা, ছোট বোনকে পড়ানো, অসুস্থ মায়ের দেখভাল, সব কিছু খুব আনন্দের সাথে করতে থাকে কোন ক্লান্তি ছাড়াই। তার আশেপাশের মানুষের সাথে যোগাযোগ রাখা এমনকি নিজের সবচেয়ে প্রিয় কাজ, ছবি আঁকারও সময় বের করেন তিনি। তার মতে তিনি বেশ সুখী জীবনযাপন করছেন। একদিন কাজলের সহকর্মী তার কাছে জীবন নিয়ে নানা অভিযোগ করছিল। “এত কাজ করতে ভাল লাগে! অফিসের ডেডলাইন মাথায় রাখো, বাসার কাজ, বিল দাও! কাজ করতে করতে একদিন মরেই যাব! জীবনে শান্তি বলতে কিচ্ছু নেই আর।” এমনটি ছিল তার অভিযোগ। কাজল সবকিছু শুনে তাকে জীবনে ভাল থাকার কিছু উপায় বললেন যেটা কাজল মনে করেন জীবনে ব্যালেন্সড ভাবে বাঁচতে সাহায্য করে।

কাজল যে উপায়ে তার জীবনযাপন করছেন তাকে পারমা(PERMA) মডেল বলা হয়। নামটি এসেছে ৫টি ক্ষেত্রবিশেষ মিলিয়ে:Positive emotions, Engagement, Relationships, Meaning of life এবং Achievement থেকে।  পারমা মডেল অনুযায়ী, ৫টি ক্ষেত্রবিশেষ মেনে চললে জীবনে সুখী থাকা সম্ভব। প্রথমত, জীবন সম্পর্কে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি রাখতে হবে। জীবনে যা কিছু ঘটেছে বা ঘটছে তাকে খারাপভাবে বা নেতিবাচক ভাবে না নি স্বাভাবিক ভাবে মেনে নেয়া। যত দ্রুত একটি বিষয় স্বাভাবিকভাবে নেয়া যাবে, জীবন তত বেশি সহজ হবে। কোন ঘটনার প্রেক্ষিতে ভাল আউটকাম কি হয়েছে তা যদি খুঁজে বের করা যায় তাহলে বুঝা যাবে একজন ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি সম্পন্ন ব্যাক্তি।

জীবনের ব্যস্ততার মাঝেও নিজের ভাল লাগার কাজটির সাথে লেগে থাকুন যেটাকে এ্যাংগেজমেন্ট বলা হয়। লিখতে, বই পড়তে বা ছবি আঁকতে পছন্দ করেন? সময় করে আপনার নিজের জন্য লেখা, বই পড়া বা ছবি এঁকে ফেলুন। এতে নিজের মনের রেফ্রেশমেন্ট হবে যার ফলে আপনার দৈনন্দিন কাজে কোন ক্নান্তি আসবে না।

আমরা সামাজিক জীব হওয়ায় মানুষের সান্নিধ্য আমাদের প্রয়োজন। তাই আমাদের পরিবার, আশেপাশের মানুষ এবং বন্ধুদের সাথে কোয়ালিটি সম্পর্ক ও সময় কাটানোর মাধ্যমে একজন মানসিকভাবে স্ট্রেস ফ্রী থাকতে পারেন। কারণ ভাল সম্পর্কের ফলে একধরনের মানসিক সার্পোট পাওয়া যায় যেটা আমাদের জীবন অনেকক্ষাণিক সহজ করে দেয়।

এখন একটি বাস্তব উদাহরণের দিকে তাকানো যাক। সেলিব্রিটিদের আর্থিক স্বচ্ছলতা এবং এত খ্যাতি থাকা সত্ত্বেও পরবর্তীতে দেখা যায় তারা নিজ জীবনে অসুখী কিংবা অনেকে তো আত্মহত্যা করে বসেন। তাহলে বোঝা যাচ্ছে, অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতাই শুধুমাত্র একজন মানুষকে সুখী করতে পারে না। তা ছাড়াও আমাদের জীবনের একটি অর্থ বা লক্ষ্য ঠিক করতে হবে। জীবনের লক্ষ্য ছাড়া আমাদের জীবনে এগিয়ে যাওয়া অসম্ভব হয়ে যায়। লক্ষ্য বা অর্থ যে খুব বড় হতে হবে তা না, খুব ছোটও হতে পারে যেটা নিজেকে আনন্দ দিবে। কোন অর্থ বা লক্ষ্য না থাকলে জীবনের সাথে জড়বস্তুর কোন পার্থক্য থাকে না।

জীবনে যা অর্জন, ছোট বা বড়, সেগুলোকে মূল্যায়ন করতে শিখি। মূল্যায়ন করলে নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং সামনে আরো কিছু করার উৎসাহ যোগায়। মূল্যায়ন একটি পজিতিভ প্র্যাক্টিস যেটার কারণে নিজের ভাল দিকগুলোর দিকে ফোকাস করা যায় যেটি সামনে আরো কিছু অর্জনের চাবিকাঠি।

বিজ্ঞানীরা নানা উপায়ে জীবনে ভাল থাকার উপায় বলে গেছেন। তারপরেও জীবনে সুখী থাকার উপায় মানুষভেদে ভিন্ন হয়। তবে আমরা শুধুমাত্র একটি ব্যাসিক উপায় হিসেবে এই পারমা মডেল মেনে চলতে পারি। জীবনে ভাল থাকা কিংবা সুখী থাকাটা একটি বড় অর্জন। নিজে ভাল  থাকলেই আমরা আমাদের চারপাশের মানুষদের ভাল রাখতে পারবো।

আ্যাপ্রিশিয়েট করুন

Share

“তুমি তোমার সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করেছো ইমন। এ প্লাস না আসলেও তোমার রেজাল্ট যথেষ্ঠ ভালো। এটা নিয়ে ভেঙে পড়োনা। এখন থেকে আরো ভালো করে চেষ্টা করো যাতে সামনে এটির চাইতেও ভালো ফলাফল আসে।“ এভাবেই ইমনকে বোঝাচ্ছিলেন তার বাবা। এইতো কয়েকদিন আগে ইমনের মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ পেয়েছে। এ-প্লাসটা শুধুমাত্র ফিজিক্সের জন্য মিস হয়ে গিয়েছে। এ নিয়ে তার হতাশার শেষ নেই। ফলাফল প্রকাশের পর দুইদিন তো ঘর থেকেই বের হয়নি সে। ইমনের বাবা মা তাকে অবশ্য ওর তারিফই করছেন। কারণ তারা দেখেছেন ছেলেটা বেশ চেষ্টা করেছে পরীক্ষার সময়টিতে।

যখন আমরা কারো কোনো কাজের জন্য তার প্রশংসা করি, আমরা সেই ব্যক্তির মনোবল কিংবা আত্মবিশ্বাসটিকে বাড়িয়ে তুলি। অ্যাপ্রিশিয়েশন কিংবা মূল্যবোধ শব্দটি বাইরে থেকে ছোট দেখালেও এর প্রভাব অনেক বড়। কখনো কখনো এটির সঠিক ব্যবহারের ফলে আমরা ব্যক্তিকে তার পরবর্তী কাজগুলোতে আরো বেশি কিছু অর্জন করার প্রেরণা দান করতে পারি। অনেকেই আছেন যারা জানেন এই অ্যাপ্রিশিয়েশনের গভীরতা এবং এর সঠিক প্রয়োগ কিভাবে অন্যকে  মোটিভেট করতে পারে। পরিবার থেকে শুরু করে কর্মক্ষেত্র; সবজায়গাতেই “অ্যাপ্রিশিয়েশন” একটি নেতিবাচক পরিবেশকে ইতিবাচক রূপে পরিবর্তিত করতে পারে। একটু হাসিমুখে ধন্যবাদ জানানো কিংবা সহকর্মীর কোনো সাহায্যের বিপরীতে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করাই পারে আমাদের আশেপাশের পরিবেশের উপর একটি ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে। যখন আমাদের ভাই-বোন কিংবা বন্ধু পরীক্ষায় আশানুরুপ ফলাফল অর্জন করতে না পারে কিংবা আমাদের কোনো সহকর্মী কোনো একটি কাজে ব্যর্থ হন তখন তাদের সমালোচনা না করে অ্যাপ্রিশিয়েট করা উচিত। কারণ এই ছোট একটু অ্যাপ্রিশিয়েশন তাদের মধ্যে আরো ভালো করার প্রেরণা জোগাবে। আমরা যদি তাদের অর্জনকে ছোট করে দেখি কিংবা তাদের কাজের প্রতি অতি সমালোচনামূলক মনোভাব পোষণ করি তবে তাদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। সে নিজেকে মূল্যহীন কিংবা ইউজলেস মনে করতে পারে। এতে বরঞ্চ লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি। ব্যক্তি আরো ভালো কিছু করার উদ্যম হারিয়ে ফেলতে পারে। প্রত্যেকেই চায় অন্যরা তার কাজের প্রশংসা করুক। ব্যক্তির কাজের বিপরীতে তাকে শুধু ধন্যবাদ না বলে “আপনি কাজটি ভালো করেছেন” কিংবা “চালিয়ে যাও” ইত্যাদি শব্দ ব্যবহার করলে সে পরবর্তীতে যেকোনো কাজে আরো ভালো কিছু অর্জন করার চেষ্টা চালায়। হয়ত অফিসের কোনো কাজে বসের বকা খেয়ে কাঁচুমাচু হয়ে থাকা কলিগকে তার চেষ্টার প্রশংসা করলেন, কিংবা পরীক্ষায় খারাপ করে আত্মীয় স্বজনের খোঁচায় জর্জরিত ছেলেকে একটু সাহস দিলেন; হাজারও সমালোচনার মাঝে আপনার একটুখানি অ্যাপ্রিশিয়েশনই হয়ত তাদের দিনটিকে ভালো করে দিতে পারে।

অ্যাপ্রিশিয়েশন শুধুমাত্র কর্মক্ষেত্রে নয় বরং জীবনের সকল ক্ষেত্রে ব্যবহার উপযোগী। পরিবার বন্ধু সবার প্রতি এই মূল্যবোধ অনুশীলন একটি ভালো গুণ। আপনার কোনো বন্ধু পরীক্ষায় মোটামুটি ভালো রেজাল্ট করেছে? তাকে অ্যাপ্রিশিয়েট করুন। সে পরবর্তীতে আরো ভালো কিছু করবার চেষ্টা করবে। আপনার প্রতিবেশী আপনার কোনো উপকার করেছেন? তার এই কাজকে অ্যাপ্রিশিয়েট করুন। আপনার স্বামী কিংবা স্ত্রী আপনার জন্য সুন্দর কোনো উপহার এনেছেন? তাকে হাসিমুখে অ্যাপ্রিশিয়েট করুন। সময়মত অ্যাপ্রিশিয়েট করা মানুষের মধ্যে সম্পর্ক ভালো রাখে। কারো প্রচেষ্টার প্রশংসা করার মাধ্যমে আপনি নিজের একটি ইতিবাচক দিক প্রকাশের সুযোগ পাবেন। এটি প্রমাণ করবে যে আপনি অন্যদের ছোট ছোট কাজেরও মূল্য দিতে জানেন। সেজন্য যখনই সম্ভব আপনার পাশের মানুষটির প্রতি অ্যাপ্রিশিয়েশন দেখানো জরুরী। এতে মানুষের সাথে আপনার সম্পর্কের উন্নতি হবে। অন্যরা আপনাকে গুরুত্ব দিবে ঠিক যেমনটা আপনি তাদের দিচ্ছেন। এটি অল্প হলেও আপনার জীবনের কিছু কাজকে সহজ করে তুলবে।

কৃতজ্ঞতা, মূল্যবোধ কিংবা অ্যাপ্রিশিয়েশন যাই বলা হোক না কেনো; এটি যদি সঠিকভাবে ব্যবহার করা হয় তবে এর সুফল অবশ্যম্ভাবী। গঠনমূলক সমালোচনা উপকারী, তবে চেষ্টা করুন অন্যের কাজের অতি সমালোচনার বদলে প্রশংসা করে তাকে আরো ভালো কিছু করার উৎসাহ দেয়ার। চারপাশের পরিবর্তনগুলো আপনি নিজেই দেখতে পাবেন।

আশিক মাহমুদ

একাকীত্বের সাথে বসবাস

Share

ঐশী ইন্টারমিডিয়েট সেকেন্ড ইয়ারে পড়ে। ক্লাসে তার অনেক বন্ধু। কিন্তু বাসায় আসলেই ঐশীর মনে হয় যে সে খুবই একা একজন মানুষ। ঐশীর বাবা মায়ের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকে। সে তখন প্রায়ই রুমের দরজা বন্ধ করে মাথা নিচু করে বসে থাকে। এই অবস্থায় সে পড়ায় মন দিতে পারেনা। তার রেজাল্ট আগের তুলনায় এখন বেশ খারাপ হচ্ছে। এজন্য তাকে তার বাবা মা অনেক কড়া কথা শুনিয়েছেন। ঐশী বুঝতে পারেনা তার অবস্থার জন্য আসলে দায়ী কে? তার মনে অনেক প্রশ্ন, অনেক কথা। কিন্তু তার মনে হয় তার কথা শোনার মত কেউ নেই। কলেজের সময়টুকু বন্ধুদের সাথে সে হাসি ঠাট্টা করলেও তার মনের অবস্থা সম্পূর্ণ ভিন্ন। সে বন্ধুদের সাথে অনেক কথা শেয়ার করতে চাইলেও কিছু শেয়ার করেনা এই ভেবে যে তারা ঐশীকে নিয়ে পরে কী ভাববে! এইভাবেই একাকী ঐশী নিজের মনের অবস্থার সাথে যুদ্ধ করতে থাকে।

প্রতিযোগিতার যুগে আমরা অনেক সময়ই আমাদের সবচেয়ে আপনজনকে সময় দিতে পারিনা। যার ফলে তারা দিন দিন একা হয়ে পরে। আমরা সবাই সুখী জীবন যাপন করতে চাই।আর তার জন্য দরকার মানসিক প্রশান্তি। কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার হল মানসিক স্বাস্থ্য আমাদের সমাজে এখনও অনেক অবহেলিত। মানসিক সমস্যাগুলো ট্যাবুর মত। একাকীত্ব মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য এক প্রকার অন্তরায়ই বলা যায়। সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে প্রতিদিন কত মানুষের সাথে আমাদের যোগাযোগ হচ্ছে। কিন্তু তবুও মাঝেমাঝে মনের কথাগুলো বলার জন্য কাউকেই পাশে পাওয়া যায় না। এই নিঃসঙ্গতা থেকে মন খারাপের সৃষ্টি হয়। বন্ধুমহলে ‘ভাল্লাগেনা রোগী’ হিসেবে পরিচিতি পাওয়া মানুষগুলোর কাছে তার বন্ধুরা কি কখনও জানতে চায় তার ভালো না লাগার কারণ কী? জিজ্ঞেস করলে হয়তোবা উঠে আসত কোনো ঘটনা যা তাকে এখনো পীড়া দিচ্ছে। বন্ধুদের এই ঠাট্টার কারণে হয়ত এখন সে নিজেকে আরও একা অনুভব করে ।

একাকীত্বের আরেকটি বড় কারণ হতে পারে আশেপাশের মানুষের ‘জাজমেন্টাল’ মনোভাব। পাপীকে নয়, পাপকে ঘৃণা কর- কথাটি মেনে চলার মানসিকতা আমাদের সমাজে বেশিরভাগ মানুষের নেই। কেউ আমাদের কাছে তার অপরাধবোধজনিত কোন কষ্ট শেয়ার করতে আসলে আমরা অনেকেই বাঁকা কথার দ্বারা তার অপরাধবোধকে আরো তীব্র করে তুলি। ফলে অপরাধবোধের সাথে যুক্ত হয় সংকোচ এবং সেই মানুষেরা নিজেদেরকে খুবই একা অনুভব করে। এমনকি অতীতের কোন ট্রমার কথা বলতেও মানুষ সংকোচ বোধ করে আর নিজেকে গুটিয়ে নেয়। সম্পর্কবিচ্ছেদ, দাম্পত্য কলহ, আপনজনের মৃত্যু, বিরূপ পারিবারিক পরিবেশ ইত্যাদি মানুষের একাকীত্বের কারণ হতে পারে।  এই একাকীত্বের কারণে পরবর্তীতে অনেকে মানসিক জটিলতায় ভোগে। যেসব শিশু সুস্থ পারিবারিক পরিবেশ না পেয়ে একা বেড়ে উঠে পরবর্তীতে তারা সহজে সামাজিক সম্পর্ক স্থাপন করতে পারেনা। একাকীত্ব শিশুদের সুস্থ মানসিক বিকাশ ব্যাহত করে।

একাকীত্ব কোন রোগ নয় কিন্তু অনেক মানসিক রোগের লক্ষণ। ডিপ্রেশনে আক্রান্ত ব্যক্তিরা বেশিরভাগই নিজেকে খুব একা অনুভব করে। মানুষের আত্মহত্যা চিন্তার পেছনেও একাকীত্বের ভূমিকা রয়েছে। একাকীত্ব মানুষের শারীরিক অবস্থার ওপরও প্রভাব ফেলতে পারে। নিজেকে বাইরের জগত থেকে গুটিয়ে নেয়া মানুষের শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

একাকীত্ব দূর করার জন্য সর্বপ্রথম নিজেকে নিজের সময় দেয়া উচিত। দিনের কিছুটা সময় নিজেকে নিয়ে ভাবলে নিজের পজিটিভ এবং নেগেটিভ সাইটগুলো সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যায় এবং কোন কারণগুলো জন্য নিজেকে একা মনে হয় সে বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায়। মাইন্ডফুলনেস চর্চা বা মেডিটেশন এই ব্যাপারে সাহায্য করতে পারে। দ্বিতীয়ত, মানুষের সাথে সম্পর্ক স্থাপনে আগ্রহী হতে হবে। আর এই ব্যাপারে কিছুটা সময় নিয়ে সঠিক বন্ধু বা সঙ্গী নির্বাচন করতে হবে। নিজের মনের কথাগুলো বিশ্বস্ত কাউকে বললে মানুষের একাকীত্ব অনেকাংশে কমে যায়। অন্যের ফ্যামিলি বা ফ্রেন্ড সার্কেল অথবা জীবনযাপনের সাথে নিজের তুলনা করা থেকে বিরত থাকতে হবে। মানসিক সমস্যাগুলো প্রয়োজনে কাউন্সেলিং এর মাধ্যমে সমাধান করতে হবে। প্রতিদিন জীবনকে নতুন করে দেখার মানসিকতা আমাদের মানসিক উৎকর্ষের পক্ষে সহায়ক।

(সামিরা মাহজাবিন)

বুলিং এবং এর পেছনের গল্প

Share

তুহিন অষ্টম শ্রেণীতে পড়ে। একদম প্রথম থেকে নিয়মিত ছাত্র হলেও ইদানীং সে ক্লাসে যেতে চায়না। বাবামা কিছু জিজ্ঞেস করেও সেটির কারণ বের করতে পারেনি। অবশেষে একদিন তুহিন তার কাজিনের কাছে এই স্কুলের প্রতি অনাগ্রহ সৃষ্টির কারণটি খুলে বলে। তুহিনের ক্লাসমেট সুমন তার বন্ধুদের নিয়ে তুহিনকে প্রতিদিনই উঠতে বসতে জ্বালাতন করে। কোনোদিন খাতা কিংবা জামায় পানি ঢেলে দিচ্ছে কিংবা টিফিনের খাবার কেড়ে নিচ্ছে। তুহিনের চশমা কিংবা ব্যাগ নিয়ে ছোঁড়াছুঁড়ি তো নিত্তনৈমিত্তিক ব্যাপার। অনেক সময় তো শারীরিকভাবে আঘাতও করে বসে। তুহিন প্রতিবাদ করতে গেলে এই অত্যাচারের মাত্রা আরো বেড়ে যায়।

“আজ ফেরার পথে ধাক্কা দিয়ে তুহিনকে কাদায় ফেলে কী মজাটাই না নিয়েছি বন্ধুদের সাথে। আরে বন্ধুদের সাথে যদি একটু মজাই করতে না পারলাম তো স্কুলে যেয়ে লাভটা কী? আর আমি তো শুধু মজাই করছি। তুহিন তো এগুলা বুঝতেই চায়না। আরেকটু হলেই কেঁদে দিচ্ছিলো গাধাটা।“ এইসব ভাবতে ভাবতে বাসায় ফিরে আসে সুমন। বাসায় ঢুকেই শোনে তার বাবা-মা ঝগড়া করছে। ধুর, প্রতিদিন আর এই চেঁচামেচি সহ্য হয়না। একরাশ বিরক্তি নিয়ে বেরিয়ে পড়ে সুমন। এলাকার বন্ধুদের আড্ডাখানায় যেয়ে বসে সে। সেখানেও ছোটখাটো একটা বিষয়ে মতের অমিল হওয়ায় বন্ধুদের সাথে ঝগড়া লেগে যায় তার।

বন্ধুদের সাথে মজা তো আমরা সবাই করি। কিন্তু সেই মজাটি যখন বন্ধুর জন্য অস্বস্তিকর হয়ে যাচ্ছে কিংবা সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে এবং এই অপ্রীতিকর ঘটনাটি যখন বন্ধুর আপত্তি সত্ত্বেও বারবার ঘটতে থাকে তখন সেটিকে বুলিং বলা হয়। প্রধানত দুই ধরণের বুলিং দেখা যায় স্কুলগামী বাচ্চাদের মধ্যে। শারিরীক ভাবে আঘাত কিংবা দলবদ্ধভাবে একজনের উপর চড়াও হওয়ার মাধ্যমেই বুলিং এর প্রকাশ ঘটে। আঘাত করা কিংবা বিভিন্নভাবে ক্ষতির মাধ্যমেই “ফিজিক্যাল বুলিং” এর ঘটনা দেখা যায়। গ্রুপের মধ্যে কাউকে একঘরে করে রাখা, সবসময় তাকে নিয়েই সমস্ত জোকস, তাকে নিয়ে গুজব ছড়ানো কিংবা তাকে উদ্দেশ্য করে বর্ণবাদমূলক কথাবার্তা কিংবা গালিগালাজ; এইসব দ্বারা “রিলেশনাল বুলিং” বোঝানো হয়। এছাড়া স্কুল কলেজ ছাড়াও কর্মক্ষেত্রে সেক্সুয়াল বুলিং; কিংবা ইন্টারনেটে সাইবার বুলিং বেশ বড় ধরনের সমস্যা। এইসব অপ্রীতিকর ঘটনা পরবর্তীতে ভিক্টিমের মানসিক সুস্থতার ক্ষেত্রে বেশ বড় ধরনের প্রভাব ফেলে থাকে। একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায় বিশ্বের প্রায় ২২% মানুষ যারা বুলিং এর শিকার হয়েছেন তারা বেশ লম্বা সময় ধরে এটির দ্বারা প্রভাবিত হন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সেটি ৫০ বছর পর্যন্ত যেতে পারে। মেয়েদের ক্ষেত্রে শতকরা ৪০ জন এবং ছেলেদের ক্ষেত্রে শতকরা ২৭ জন চাইল্ডহুড বুলিং এর ফলাফল হিসেবে পোস্ট ট্রমাটিক ডিসঅর্ডারের সম্মুখীন হয় (মিশা কেচেল, ২০১৮)।

একজন মানুষ যখন বুলিড হয় তখন সে শারীরিক বা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। বেশ কিছু লক্ষণীয় পরিবর্তন দেখা যায়। সে বন্ধুবান্ধব থেকে আস্তে আস্তে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। একাকী হয়ে পড়ে; ডিপ্রেশন তাকে ঠেলে দিতে পারে ড্রাগ এ্যাডিকশনের দিকে। বুলিং এর মানসিক ট্রমা,  ডিপ্রেশন কিংবা লো সেলফ এস্টিম এর কারণে সে সুইসাইডের দিকেও এগিয়ে যেতে পারে। যখন সে দেখে সে বুলিড হচ্ছে দেখেও কেউ তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসছে না তখন তার ভিতরে ট্রাস্ট ইস্যু গড়ে উঠতে পারে। এ্যাগোরাফোবিয়া কিংবা প্যানিক ডিসঅর্ডারের মত সমস্যার পিছনেরও অন্যতম কারণ এই বুলিং (ডিউক ইউনিভার্সিটি, নর্থ ক্যারোলাইনা)। বুলিং এর শিকার হওয়া মানুষ পাবলিকলি কথা বলতে ভয় পায় কারণ স্কুলে হয়তো তাকে অপিনিয়ন জানানোর কোনো সুযোগ দেয় হয়নি কিংবা তার মতামত নিয়ে হাসাহাসি করা হয়েছে। বুলিং এর ইফেক্ট হিসেবে অনেক মানুষই দুঃস্বপ্ন দেখে থাকে।

একজন বুলিং ভিক্টিমকে সাহায্য করার ক্ষেত্রে সাধারণত কাউন্সেলিং কিংবা কথা বলাই সর্বোত্তম পদ্ধতি। একজন প্রফেশনালের সাথে কথা বলে কিংবা অন্যান্য মানুষ যারা কিনা বুলিং এর শিকার হয়েছেন এসব মানুষের সাথে কথা বলে নিজের ভয়কে কাটানো যায়। বুলিং ভিক্টিমরা অনেক সময় বুলিড হওয়ার জন্য নিজেকে দোষারোপ করে থাকেন। যার কারণ হচ্ছে লো সেলফ এস্টিম। নিজের মতামতের গুরুত্ব না পাওয়া, সোশ্যাল সার্কেলে যথাযথ মনোযোগ না পাওয়া লো সেলফ এস্টিমের অন্যতম কারণ। এখানে কথা বলার মাধ্যমে ভিক্টিম বুঝতে পারে তার মতামতেরও গুরত্ব রয়েছে। সে নিজেকে গুরুত্ব দেয়া শেখে। বুলিং এর ফলে যে ভিক্টিম পাবলিকলি কথা বলতে ভয় পায় সে আস্তে আস্তে তার ভয়কে কাটিয়ে উঠে।

একজন বুলি বুলিং কেন করে? আমরা প্রায়শই দেখে থাকি ক্লাসের সবচেয়ে শক্তিশালী ছেলেটি হয়ত ক্লাসের সবচেয়ে দুর্বল ছেলেকে বুলি করছে। এছাড়া অনেক সময় অবিসিটি (Obesity) কিংবা ইকোনমিক স্ট্যাটাসের কারণেও অনেকে বুলিং এর শিকার হয়ে থাকে। বিজ্ঞানীরা বুলিং এর কারণ হিসেবে হাই সেলফ এস্টিম, আগ্রাসী মনোভাব, ক্রোধ, বেড়ে উঠার পরিবেশ ইত্যাদিকে দায়ী করেন। উপরে আমরা দেখতে পাই সুমন তার বাসায় বাবা-মায়ের ঝগড়ার ফলে বাসা থেকে বেরিয়ে যায়। এখানে বাসার পরিবেশের প্রতি সুমনের প্রতিক্রিয়া কিংবা বন্ধুদের আড্ডায় নিজের আধিপত্য বিস্তার করতে না পারার ক্ষোভ ইত্যাদি বিষয় স্কুলে সুমনের বুলি করার দিকে আঙুল তোলে। স্কুলে বুলিং-এর ফলে সে প্রভাব বিস্তার করতে পারছে এবং সেখানে সেই যেকোনো কিছুর কেন্দ্রবিন্দু এবং বুলিং করে সে নিজে আনন্দ পাচ্ছে এসব কারণই তাকে বারবার অন্যদের বুলি করতে উৎসাহিত করে।

আমাদের সমাজে মানুষ সাধারণত যে বুলিড হচ্ছে তার দিকেই বেশি নজর দেয়। কিন্তু আমরা চাইলেই যে বুলি করছে তার দিকেও একটু খেয়াল রেখে তার বুলিং এর কারণ বের করতে এবং বুলি করার মাত্রা কমাতে সাহায্য করতে পারি। একজন বুলি সাধারণত রাগ, ক্ষোভ এবং অল্পবিস্তর ডিপ্রেশনের শিকার হয়ে থাকেন। কাউন্সেলিং এর মাধ্যমে তার চিন্তাধারা সম্পর্কে ধারণা নিয়ে তাকে বুলিং এর ক্ষতিকর দিক সমূহ সম্পর্কে বোঝানো যেতে পারে। এছাড়া একজন বুলির মধ্যে নার্সিসিস্টিক পার্সোনালিটির কিছু লক্ষণও দেখা যায়। এক্ষেত্রে তাকে অন্যের মতামতকে গুরুত্ব দেয়া কিংবা অন্যের অসুবিধা বুঝতে পারা সম্পর্কে সাহায্য করা যেতে পারে। তার মধ্যে সিমপ্যাথি এমপ্যাথি ইত্যাদি গুণ গড়ে তুলতে সাহায্য করা যায়।

বুলিং সারাবিশ্বেই একটি সাধারণ ঘটনা হলেও ব্যাক্তির মানসিক সুস্থতার উপর এর সুদূরপ্রসারী প্রভাব রয়েছে। আমাদের পাশের মানুষটিই হয়তো তার সোশ্যাল সার্কেল থেকে বিচ্ছিন্ন এই বুলিং এর কারণে; কিংবা সে নিজেই হয়তো একজন বুলি। বুলিং এর ভিক্টিম অথবা বুলিং এর জন্য দায়ীকে বুলিং এর নেতিবাচক দিকগুলো সম্পর্কে বুঝিয়ে বলা আমাদেরই দায়িত্ব।

অনেকে আছেন নিজের কথা শেয়ার করার জন্য ‘right person’ কে পাচ্ছে না। সেই ক্ষেত্রে itsokay website একটি ভালো একটা প্ল্যাটফর্ম। এখানে আপনি পরিচয় গোপন রেখে আপনার কথা বলতে পারেন এবং আপনার মত আরো অনেক জনকে পেতে পারেন যার সাথে আপনি নির্দ্বিধায় মনের কথা খুলে বলতে পারেন।

মেজাজ যখন এটম বম্ব

Share

আহসান হাবিব একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত।সারাদিন বিভিন্ন ধরণের মানুষের সাথে কাজ করতে হয় তাকে।

একদিন সকালে নাস্তা দিতে দেরী করায় রেগে গিয়ে সে তার স্ত্রী’কে খুব বকাঝকা করলেন এবং রাগ করে সকালের নাস্তা না খেয়ে বাসা থেকে বেরিয়ে গেলেন।অফিসে যাওয়ার পথে তার গাড়ির সাথে একটি রিক্সার ধাক্কা লাগলে তিনি রেগে গিয়ে রিকশাচালকে থাপ্পড় দিয়ে বসলেন।সেদিনই অফিসে সে তার কাছের একজন কলিগের সাথে সামান্য বিষয় নিয়ে ঝগড়া করা শুরু করলেন।যেহেতু সারাদিন বিভিন্ন কারণে রেগে ছিলেন, বাসায় এসেও মন ভালো ছিল না তার। আহসান হাবিবের ৫ বছরের সন্তান যখন তার কাছে বিভিন্ন বায়না করছিলো তখন তিনি রেগে গিয়ে বাচ্চার উপর চিৎকার করা শুরু করলেন।

রাগ করা খুব স্বাভাবিক এবং এর প্রকাশ করাটাও খুবই স্বাভাবিক একটা ব্যাপার। কেউ খুব ছোট বিষয়ে হঠাৎ রেগে যান আবার কেউ খুব সহজে রাগ না করলেও রাগান্বিত অবস্থায় বেশ ভয়ংকর হয়ে উঠেন। আবার অনেকে আছেন তারা রাগ করলেও সেটিকে প্রকাশ করেন না, বরং ঠান্ডা মাথায় সেটিকে মোকাবেলা করেন। তবে রাগের  ধরণ যেমনই হোক না কেন রাগ আমাদের ক্ষতি ছাড়া ভাল কিছু করেনা।রাগের অনেক ক্ষতিকারক দিক আছে। অতিরিক্ত রাগকে স্ট্রেসফুল ডিজিজের কারণ হিসেবে দেখা হয়। রাগান্বিত ব্যক্তি হঠাৎ করেই অধিক পরিমাণে উত্তেজিত হয়ে পড়েন যা কিনা ব্যক্তিকে হৃদরোগ এবং স্ট্রোকের দিকে ঠেলে দেয়। এছাড়া অস্বাভাবিক রাগ ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমায়। দীর্ঘ সময় ধরে যদি ব্যাক্তি রাগের মধ্যে দিয়ে যায় তবে সেই ব্যাক্তির শারীরিক ও মানসিক ক্ষতি হতে পারে।তাই ব্যাক্তির রাগ কন্ট্রোল করা শিখে নেওয়াটা খুবই জরুরী।

যেভাবে রাগকে কন্ট্রোল করা যেতে পারে-

০১।আপনার রাগের কারণগুলো জানুন।যেসব বিষয় আপনাকে রাগিয়ে দেয় সেগুলোর দিকে খেয়াল রাখুন।

০২।যখনই কোন বিষয় নিয়ে রাগ অনুভব করছেন তখন একটু ব্রিদিং এক্সারসাইজ করুন।

০৩।যেসব কাজ,আলোচনা বা তর্ক আপনাকে রাগিয়ে দেয়,সেসব এড়িয়ে চলুন;প্রয়োজনে একটু বিরতি নিন।

০৪।কারো আচরণ যদি আপনার রাগের কারণ হয়  তবে সেই ব্যাক্তিকে তা বুঝিয়ে বলুন।তার আচরণে কষ্ট পাচ্ছেন তা প্রকাশ করুন।

০৫।অফিসে কলিগের সাথে রেগে গেলে তাৎক্ষণিক ঐ স্থান ত্যাগ করুন।প্রয়োজনে একটু বাইরে থেকে হেঁটে আসতে পারেন।

০৬।প্রতিদিন পরিমিত পরিমাণ ঘুমান।

০৭।নিয়মিত ব্যায়াম করুন।

০৮।প্রকৃতির সংস্পর্শে থাকুন।

০৯।পজিটিভ হওয়ার চেষ্টা করুন।

১০।রাগগুলোকে মনে পুষে না রেখে রাগের কারণগুলোকে ব্যাখা করুন।দেখবেন রাগ অনেকটা কমে যাচ্ছে।

যখন আমরা রাগ করি তখন আমরা মূলত নিজেদেরকেই কষ্ট দেই এবং কাছের মানুষগুলোর সাথে সম্পর্ক নষ্ট করে ফেলি।রেগে না গিয়ে শান্তভাবে কোনো সমস্যার সমাধান করতে পারাই মূলত এ্যাঙ্গার ম্যানেজমেন্ট টেকনিক।  রাগ করা ছাড়াও যে সমস্যার সমাধান করা যায় তা শিখে নেওয়া জরুরী।রাগ কন্ট্রোল করে সুস্থ সুন্দর জীবন যাপন করার জন্য প্রয়োজনে যে কেউ সাইকোলজিস্টের কাছ থেকে কাউন্সেলিং সেবাও নিতে পারেন।

অন্তরা অন্তু