নারী নির্যাতন ও মানসিক স্বাস্থ্য

Share

ঘটনা ১ –
জরিনা, বয়স ত্রিশ। বাসায় বাসায় কাজ করে সে পরিবারে অন্ন সংস্থান করে। দিনে অন্তত ৪-৫টি বাসায় কাজ করার পর দিনশেষে তাকে আবার পরিচর্যা করতে হয় নিজের পরিবারের, তিন সন্তান আর স্বামীর। তার স্বামী দিনের পর দিন আলসেমীতে দিন কাটিয়েও দিনশেষে রাতে এসে তার পৌরষত্বের প্রমাণ রাখতে যেয়ে অত্যাচার করে জরিনার উপর। মুখে গালাগালি আর পিঠের উপর কিল ঘুষি, জরিনার নিত্যদিনের জীবন। যার প্রভাব পরছে তার মানসিক অবস্থাতেও। ক্রমাগত তার মধ্যে এই নিয়ে একধরনের এঞ্জাইটি কাজ করে।

ঘটনা ২ –

ফারিয়ার বিয়ে হয়েছে পাঁচ বছর হলো। প্রেম করে বিয়ে। বিশ্ববিদ্যালয় জীবন থেকে ছয় বছরের প্রেমের পরিণতি। বিয়ের আগে একটা আইটি ফার্ম এ চাকরি করলেও বিয়ের পর স্বামীর ইচ্ছার প্রতিদান দিতে তাকে ছাড়তে হয় সেই চাকরি। আর এদিকে তার স্বামী নীরব একটা মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানির বেশ ভাল পদের কর্মকর্তা। বিয়ের প্রথম ক’বছর দু’জনের বেশ সুখের সংসার চললেও, কিছুদিনের মধ্যে দেখা দেয় নীরবের আসল রূপ। আগে যখন মুখে ফুটতো প্রেমের বুলি এখন সেই মুখ দিয়ে বের হয় ফারিয়ার প্রতি বিরক্তির সুর। ফারিয়ার প্রতিবাদের উত্তর হিসেবে সে এখন তার গায়ে হাত তুলতেও পিছপা হয় না।

ফারিয়া, যে কিনা হাসি খুশি প্রানোচ্ছল মেয়ে ছিল, সে এখন জীবন নিয়ে হতাশ, কোনোকিছুতেই আর আগ্রহ পায় না। উপরে উল্লিখিত দু’টি ঘটনাই দুইজন নারীর জীবনের।

 

এখানে সমাজের ভিন্ন দুই স্তরের দুই নারীর কথা বললেও একটি জায়গায় এসে তাদের দুইজনের জীবন মিলে গেছে একই বিন্দুতে। দুইজনই শিকার পারিবারিক নির্যাতনের। যার প্রভাব পরছে তাদের মানসিক অবস্থায়।

নারী নির্যাতন বলতে আমরা বুঝি –

ব্যক্তিগত এবং পাব্লিক দুই ক্ষেত্রেই যে কোনো ধরনের লিঙ্গ নির্ভর নির্যাতন যা কিনা নারীদের শারীরিক, যৌনভিত্তিক এবং মানসিক ক্ষতি করে, একই সাথে এ ধরণের কাজ করার হুমকি এবং নারীদেরকে স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত করাও এর অন্তর্ভুক্ত।

বর্তমান সমাজের একটি বেশ সাধারণ চিত্র হয়ে গেছে নারী নির্যাতন। রাস্তাঘাটে, বাসায়, পরিবারে, কর্মক্ষেত্রে সবখানে নারীরা মৌখিক বা শারীরিক কোনো না কোনোভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। আগে যেটা মনে করা হতো সমাজের নিম্ন শ্রেনীর, কম শিক্ষিত মানুষের মধ্যকার বর্বরতার চিত্র, এখন আর তা না। নারীরা নির্যাতিত হচ্ছে সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে। অর্থনৈতিকভাবে সচ্ছল, স্বাধীন, শিক্ষিত সমাজের নারীরাও এই পাশবিক অত্যাচারের শিকার। আবার পুরুষ দ্বারা চালিত এই সমাজে নারীরা যতই নির্যাতনের শিকার হোক না কেন শেষ মেশ তাদের উপর সকল দোষ চাপিয়ে দেয়া হয়। এক ধরের সামাজিক চাপ দ্বারা তারা চালিত হয়।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে পুরো বিশ্বে প্রায় ১৫-১৭% নারীরা এ ধরণের নির্যাতনের শিকার। বাংলাদেশে এর সংখ্যা বেড়ে গিয়ে দাড়িয়েছে ৫০-৭০%। নারী নির্যাতন শুধুমাত্র শারীরিক না মানসিক দিক থেকেও নারীদের উপর হানিকর প্রভাব ফেলে। “বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থা” তাদের একটি গবেষণায় নারীদের দুর্বল মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য তাদের উপর নির্যাতনকে দায়ী করেছে। নয়টি নিম্ন এবং মধ্য আয়ের দেশের উপর করা একটি কোয়ান্টিটিভ গবেষণার ফলাফল হিসেবে নারী নির্যাতনের সাথে তাদের আত্মহত্যার আন্তঃসম্পর্ক পাওয়া গেছে। মানসিক অসুস্থতা বহুগুণিতক অবস্থা। অনেকগুলো ফ্যাক্টর জটিল্ভাবে একত্রিত হয়ে মানসিক রোগের সৃষ্টি অথবা তা বজায় রাখে। কিছু জিনের সাথে সম্পর্কিত, আবার কিছু পারিপ্বারশিক পরিবেশ দ্বারা ত্বরান্বিত হয়। বেশ কিছু গবেষক নারী নির্যাতনের সাথে মানসিক স্বাস্থ্যের সম্পর্কের গবেষনাকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিনহিত করেছেন। এটি গ্রুত্বপূর্ণ কারণ নির্যাতনের ধরন এবং এর প্রভাব সমাজভেদে ভিন্ন হয়। যেমন বাংলাদেশের দুই তৃতীয়াংশ নারী নির্যাতনের শিকার হওয়ার পরও তা কারো কাছে প্রকাশ করে নি, অপরদিকে ব্রাজিল এবং নামিবিয়ার ৮০% নারী তা প্রকাশ করেছে। নির্যাতনের ধরনের মধ্যে বিভিন্ন রকমভেদ পাওয়া গেছে গবেষণা করে। এগুলো কিছু ক্ষেত্রে মানসিক রোগের কারণ এবং প্রায় ক্ষেত্রে অসুস্থতা বহাল রাখার ক্ষেত্রে প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছে। নির্যাতনের রকমভেদে এর প্রভাবের পার্থক্য দেখা যায়। শারীরিক অত্যাচার, সামাজিক অপমান, মৌখিক নির্যাতন ইত্যাদি ভিক্টিমের মধ্যে ইমোশনাল এবং মানসিক ট্রমার সৃষ্টি করে। “তুমি কালো, তোমাকে আমার ভাল লাগে না, অন্যমেয়েরা তোমার চেয়ে বেশি সুন্দর” বরের কাছ থেকে এ ধরণের উক্তি কিংবা বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক কিংবা অন্য নারীর সাথে যৌন মিলন, দ্বিতীয় বিবাহ ইত্যাদি মানসিক অসুস্থতার দিকে নারীদের ঠেলে দেয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে শারীরিক, মানসিক, মৌখিক, সামাজিক নির্যাতন কনভার্সন ডিজঅর্ডার, মুড ডিজঅর্ডার, বায়োপোলার ডিজরডার, অবসেশন, ডিপ্রেশন ইত্যাদির সৃষ্টি করে। এড়িয়ে চলা, অবজ্ঞা করা, কটু কথা শোনানো ইত্যাদিও ভিক্টিমের মানসিক অবস্থার উপর বাজে প্রভাব ফেলে। যার কারণে ক্রমাগত তার মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি হতে থাকে। বাংলাদেশে এবং একই সাথে পুরো বিশ্বে অনেক নারী প্রতিনিয়ত শিকার হচ্ছে নির্যাতনের। সেটা ঘরে হোক কিংবা বাহিরেই হোক, শারীরিক হোক কিংবা মানসিক। এই নির্যাতন একটা নারীর শারীরিক অবস্থার পাশাপাশি প্রভাব রাখে মানসিক অবস্থাতেও। বেশ কিছু ক্ষেত্রেই তার পরিণতি হয় মানসিক রোগে। পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেসড ডিজঅর্ডার থেকে শুরু করে ডিপ্রেশন। নির্যাতন প্রভাবক হিসেবে কাজ করে এই মানসিক রোগগুলোর পিছনের। অনেক ক্ষেত্রে মানসিক রোগ থাকার কারণে তারা শিকার হয় নির্যাতনের। এমন একটি সমাজ ব্যাবস্থা, যেখানে মানসিক সমস্যাকে সাধারণভাবেই কটু দৃষ্টিতে দেখা হয়, সেখানে নারীদের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে কারো কোনো মাথা ব্যাথাই থাকে না। অথচ এর কারণে নারীরা প্রতিনিয়ত তাদের জীবন পার করছে এক কঠোর, বিষন্ন অবস্থার মধ্য দিয়ে। এই বিষয়ে সকলের সচেতনতা বৃদ্ধি এবং নারীদের প্রতি সম্মান তৈরি করার মাধ্যমেই হয়তো এই সমস্যা কাটিয়ে উঠা যাবে।

 

লিখেছেন – অর্থি

 

আত্মহত্যা ও মানসিক স্বাস্থ্য

Share

আত্মহত্যা বা, সুইসাইড কি তা হয়তো সহজ বাংলায় প্রায় সবাই বলতে পারবো।আত্মহত্যা হল স্বেচ্ছায় নিজের প্রাণনাশ করা।

ইতিহাসের পাতা উল্টালে দেখা যাবে অনেক আগে থেকেই আত্মহত্যা কে নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখে সবাই। কিন্তু নেতিবাচক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার পরও আত্মহত্যা এখনো মানুষের মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। এমন কি আমাদের দেশেও আশংকাজনক হারে আত্মহত্যার হার বাড়ছে।

World health organization এর প্রতিবেদন মতে, আমাদের বাংলাদেশে শুধু ২০১১ সালে ১৯,৬৯৭ জন আত্মহত্যা করেছে। আর বর্তমানে আত্মহত্যার দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ৯৭ তম।

আজ কেন আবার আত্মহত্যা নিয়ে এতো বলার চেষ্টা করছি? কারণ আছে অবশ্যই। এক গবেষণার রিপোর্ট অনুসারে, আত্মহত্যা করা মানুষের মাঝে ৯০% মানুষ মানুষিক স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগতে থাকে। এদিক থেকে বলতে গেলে আত্মহত্যার প্রধান কারণ হিসাবে এটাকে দেখা যায়। আর এ ব্যপারে আমাদের সচেতনতা প্রায় নেই বলতে গেলেই চলে।

 

মেজর ডিপ্রেসিভ ডিসঅর্ডারের রুগীদের মাঝে সুইসাইডের প্রবণতা অনেকটা বেশী। এমন কি বাইপোলার ডিসঅর্ডার থাকলে অনেক ক্ষেত্রে সুইসাইডের প্রবণতা বাড়ে প্রায় ২০ শতাংশ। এছাড়া স্ক্রিজোফ্রেনিয়া, পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার, অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার(ও.সি.ডি), পোষ্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডার (পিটিএসডি) সহ বেশ কিছু মানুষিক রোগে আত্মহত্যার প্রবনতা বাড়ে।

এছাড়া যাদের পারিবারে আগে কেও আত্মহত্যা করেছে, ড্রাগ সহ বিভিন্ন নেশা জাতীয় দ্রব্যে আসক্ত, যদি কেও কোন ধরনের abuse এর শিকার হয়ে থাকে তাদের আত্মহত্যার ঝুঁকি বেশী থাকে।
আত্মহত্যা প্রবণতা ঠেকাতে সামাজিক সচেতনতার পাশাপাশি বিপর্যস্ত ব্যক্তিকে মানসিক সহায়তা ও চিকিৎসা জরুরী। এজন্য প্রয়োজনে মানুষিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেয়া জরুরী।
আমাদের সবারই চোখ-কান খোলা রাখা জরুরী। হয়তো, খুব নিকট জনের মনের ভেতর ভাঙ্গন শুরু হয়েছে, একটুখানি সচেতনতা অভাবে তা আমলে আসছে না।

 

লিখেছেন – আরিফ

তথ্যসুত্রঃ
Suicide – Wikipedia

Suicide in Bangladesh – Wikipedia

Suicide data

পোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিজঅর্ডার

Share

গত আগস্টে মায়ানমার থেকে অত্যাচারিত বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছিলো মামুন। চোখের সামনে তার বাবাকে পুড়িয়ে মেরে ফেলা হয়েছে, তার মাকে ধর্ষণ করেছে ঐদেশের সেনাবাহিনীর সদস্যরা। সে বহু কষ্টে তার ছোট ভাইকে নিয়ে জীবন বাঁচাতে পেরেছে। এখনো সে রাতে ঘুমাতে পারে না, দুঃস্বপ্ন দেখে তার ঘুম ভেঙ্গে যায়, সবসময় অস্থিরতায় ভোগে, সে এখনো ভয়ে থাকে এই বুঝি মায়ানমারের সেনাবাহিনী এসে আবার একইরকম অত্যাচার চালাবে।

মামুনের এই ভয় লাগা, আশঙ্কায় থাকাকে মনোবিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয়ে থাকে পোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিজঅর্ডার। সাধারণত কোন আকস্মিক দুর্ঘটনা, প্রাকৃতিক বিপর্যয়, মানবিক বিপর্যয়ের ফলে মানসিকভাবে অস্থিরতা ভোগা মানুষজন এই মানসিক রোগের শিকার হয়ে থাকে। অনেক সময় এই রোগটির লক্ষণ দুর্ঘটনা ঘটার সাথে সাথেই দেখা যায়, আবার অনেকের ক্ষেত্রে অনেক পরেও আসে।

যেকোন বয়সের মানুষজনই এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তবে, শিশুদের উপরে এর প্রভাব বেশী দেখা যায়। শারীরিক নির্যাতন, যৌন নির্যাতনের শিকার হওয়া মানুষেরা এটার শিকার হয়। চুরি বা ডাকাতির শিকার হওয়া, জটিল কোন রোগে আক্রান্ত হওয়া মানুষজনও এই জটিল মানসিক রোগে আক্রান্ত হতে পারে।

 

লক্ষণঃ সাধারণত তিন ধরণের লক্ষণ দেখা যায়। প্রথমত, কোন একটা কাজে যুক্ত থাকার মধ্যেও ঐ ট্রমার কথা মনে পড়ে যাওয়া এবং বিষণ্ণতায় আক্রান্ত হয়ে একদম চুপ হয়ে যাওয়া। দ্বিতীয়ত, কোন জায়গা বা মানুষ দেখে ঐ কষ্টের ঘটনার কথা মনে পড়ে যাওয়া এবং মানুষদের এড়িয়ে চলা। তৃতীয়ত, হঠাৎ করে চমকে যাওয়া, মেজাজ খিটখিটে থাকা।

এছাড়াও আরও যেসব লক্ষণ দেখা যায়-

১। ঐ ঘটনাকে বারংবার মনে করা,

২। চুপচাপ হয়ে যাওয়া,

৩। ঐ ধরণের ঘটনা বা অবস্থা এড়িয়ে চলা,

৪। মনোযোগ ধরে রাখতে না পারা,

৫। মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাওয়া,

৬। ঘুমাতে না পারা,

৭। অল্পতেই রেগে যাওয়া,

৮। মানুষজন এড়িয়ে চলা,

৯। সম্পর্ক রক্ষা করতে হিমশিম খাওয়া,

১০। দুঃস্বপ্ন দেখা,

১১। নেতিবাচক চিন্তা বেড়ে যাওয়া,

১২। হ্যালুসিনেশনের শিকার হওয়া,

১৩। কাজের প্রতি আগ্রহ কমে যাওয়া,

১৪। মনে রাখার ক্ষমতা কমে যাওয়া,

১৫। রক্তচাপ বেড়ে যায় ও শরীরে কাঁপুনি আসে।

প্রতি ১০০ জনে ৭-৮ জন এই ধরণের মানসিক রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তবে, নারীদের ক্ষেত্রে এই হার শতকরা প্রায় ১১জন, যা পুরুষের ক্ষেত্রে ৫-৬। সাধারণত যুদ্ধের মধ্যে থাকা নারী-পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই এই হার বেড়ে যায় ২০-৩০%। আবার জীবনে সবাইই কোন না কোন সময়ে এই রোগের শিকার হয়ে থাকে। মেয়েদের ক্ষেত্রে ধর্ষণ, শারীরিক নির্যাতন, যৌন নির্যাতন, শৈশবে অবহেলার শিকার হওয়া পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিজঅর্ডারে আক্রান্ত হবার মূল কারণ। পুরুষের ক্ষেত্রেও ছোটবেলায় অবহেলা কিংবা শারীরিক নির্যাতন, যুদ্ধকালীন ভয়াবহ স্মৃতি বা অভিজ্ঞতা এই রোগের কারণ।

প্রতিকারঃ
এই রোগের প্রতিকারের ক্ষেত্রে সবচেয়ে অগ্রগণ্য ভূমিকা পালন করে থাকে আক্রান্ত ব্যক্তি নিজেই। এরপরে পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনেরা। নিজে সহজ ও স্বাভাবিক জীবন যাপন করা, নিজের ইস্যুগুলো নিয়ে বিশ্বস্ত কারও সাথে কথা বলা, নিয়মিত খাওয়া ও ব্যায়াম করা, আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর মাধ্যে দ্রুত এই মানসিক রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।
এছাড়াও সাইকোথেরাপী, কগনিটিভ বিহেভিয়ার থেরাপী (সিবিটি), EMDR (Eye Movement Desensitisation & Reprocessing) থেরাপী, গ্রুপ থেরাপী ও মেডিকেশন খুবই কার্যকরী।

(Cognitive Behavior Therapy)
(Eye Movement Desensitization & Reprocessing)

 

লিখেছেন – চয়ন